নয়াদিল্লি: আর্টিকেল ৩৭০ ও ৩৫এ প্রত্যাহারের পর একদিকে যেমন বিরোধীতা অন্যদিকে চলছে উল্লাস। সারা দেশের কাশ্মীরী পন্ডিতদের মধ্যে শুরু হয়েছে সেলিব্রেশন। নাচে-গানে চলছে উল্লাস। কারণ অভিন্ন ভারতের অংশ হতে চলেছে জম্মু-কাশ্মীর।

ভারত সরকারের সাথে যুক্ত দিল্লীর কাশ্মীর সমিতি বিশেষ অনুস্থানের ব্যবস্থা করেছে রাজধানিতে। এই দলের প্রেসিডেন্ট সুমীর ছ্রাগু বলেছেন,”কাশ্মিরিদের জন্য আজ ঐতিহাসিক দিন। ৩৭০ ধারা প্রত্যাহারের খবর এদের সকলের কাছে দীপাবলির থেকে কোন অংশে কম নয়।”

সংবাদমাধ্যমের মুখোমুখী হয়ে তিনি আরও বলেন, আর্টিকেল ৩৭০ এমন এক পরিস্থিতি তৈরি করেছে যেখানে কাশ্মীরী পন্ডিতরা গণপ্রস্থানের পথ বেছে নিয়েছেন। জম্মু-কাশ্মীর ছেড়ে যেতে বাধ্য হয়েছেন। তাঁর কথায় বারবার উঠে আসে, কাশ্মীর ফেরার আশা। এই কমিউনিটির লোকেরা এখনও তাঁদের নিজেদের মাটিতে ফিরতে চায়। আর্টিকেল ৩৭০ প্রত্যাহার প্রয়োগ হলে তাঁরা মাতৃভূমিতে ফিরতে শুরু করবে।

ভারতের সংবিধানে আর্টিকেল ৩৭০ ছিল একটি ‘অস্থায়ী বিধান’ যা কাশ্মীরকে ‘স্পেশাল স্ট্যাটাস’ দিয়েছিল। এই ধারা অনুযায়ী, ১৯৪৭ সালে ভারত স্বাধীন হওয়ার পর ওই আইনের সাহায্যে শর্তসাপেক্ষে জম্মু ও কাশ্মীরের সঙ্গে ভারত সরকারের সম্পর্ক ঠিক রাখার চেষ্টা করা হয়েছিল। আর্টিকলে ৩৫ এ অনুযায়ী, ১৯৫৪ সালের ১৪ মে থেকে যাঁরা জম্মু ও কাশ্মীরের বাসিন্দা বা যাঁরা ১০ বছর ওই রাজ্যে বসবাস করছেন, তাঁরা সেখানে জমি বাড়ি সম্পত্তি কিনতে পারবেন। তাঁরাই সরকারি চাকরি পাবেন। অন্যরা নয়।