মেলবোর্ন: অস্ট্রেলিয়ায় ইতিহাস সৃষ্টি করেছে কোহলিবিগ্রেড৷ টেস্ট সিরিজের পাশাপাশি অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে প্রথমবার দ্বি-পাক্ষিক ওয়ান ডে সিরিজ জিতল ভারত৷ বিশ্বচ্যাম্পিয়নদের বিরুদ্ধে সিরিজ জিতে উচ্ছ্বসিত ক্যাপ্টেন কোহলি৷ বিশ্বকাপের ঠিক আগে দলের ব্যালেন্সড নিয়ে খুশি ভারত অধিনায়ক৷

শুক্রবার মেলবোর্নে তৃতীয় তথা শেষ ওয়ান ডে জিতে ২-১ তিন ম্যাচে সিরিজ জিতে নেয় টিম ইন্ডিয়া৷ ম্যাচ জয়ের পর ক্যাপ্টেন কোহলি বলেন, ‘অনেক দিন অস্ট্রেলিয়ায় আমরা খেলছি৷ কিন্তু এই সফরটা দারুণ৷ টি-২০ সিরিজ ড্র করার পর আমরা টেস্ট ও ওয়ান ডে সিরিজ জিতেছি৷ এর আগে কখনও এমনটা হয়নি৷’ এমসিজি-তে ২৩০ রান তাড়া করে মাত্র তিন উইকেট হারিয়ে ম্যাচ জিতে নেয় ভারত৷ সিডনিতে সিরিজের প্রথম ম্যাচে ৩৪ রানে হারলেও অ্যাডিলেড ওভাল ও মেলবোর্নে পরের দু’টি ম্যাচ জিতে সিরিজ জিতে নেয় টিম কোহলি৷

৩০ মে ইংল্যান্ডের মাটিতে শুরু হচ্ছে বিশ্বকাপ৷ তার আগে সম্ভবত ১০টি ওয়ান ডে খেলার সুযোগ পাবে বিরাটরা৷ বিশ্বকাপের আগ দলের পারফরম্যান্স নিয়ে অত্যন্ত খুশি ক্যাপ্টেন কোহলি৷ মেলবোর্নে ইতিহাস গড়ার পর বিরাট বলেন, ‘দল নিয়ে আমি অত্যন্ত খুশি৷ এই দলকে নেতৃত্ব দিতে পেরে গর্বিত৷ এটা দলীয় ফল৷ বিশ্বকাপের আগে দলের পারফরম্যান্স ও ব্যালেন্সড নিয়ে আমি আশাবাদী৷’

সিডনিতে ২৮৯ রান তাড়া করে অল্পের জন্য ম্যাচ হেরেছে ভারত৷ রোহিত শর্মার দুরন্ত সেঞ্চুরি ও ধোনির লড়াকু হাফ-সেঞ্চুরির পরেও শেষরক্ষা হয়নি৷ কিন্তু অ্যাডিলেড ওভালে সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচে ২৯৯ রান তাড়া করে ম্যাচ জিতে সিরিজে সমতা ফেরায় কোহলিবিগ্রেড৷ বিরাটের সেঞ্চুরির পাশাপাশি ম্যাচ জেতানো হাফ-সেঞ্চুরি করেন ধোনি৷ আর এদিন মেলবোর্নে ৮৭ রানের অপরাজিত ইনিংস খেলে ম্যাচ ও সিরিজ জেতাতে বড় ভূমিকা নেন মাহি৷

প্রথম বোলাররা অজি ব্যাটসম্যানদের ২৩০ রানে বেঁধে রেখে বিরাটদের কাজটা সহজ করে দিয়েছিল৷ মাত্র ৪২ রান খরচ করে ৬টি উইকেট তুলে নেন লেগ-স্পিনার যুবেন্দ্র চাহাল৷ অস্ট্রেলিয়ার মাটিতে ওয়ান ডে ক্রিকেটে এটাই কোনও ভারতীয় স্পিনারের সেরা পারফরম্যান্স৷ এর আগে অস্ট্রেলিয়ায় ওয়ান ডে ম্যাচে ভারতীয় স্পিনারদের মধ্যে সেরা পারফরম্যান্স ছিল রবি শাস্ত্রীর পাঁচ উইকেট৷ এদিন কোচ শাস্ত্রীকে টপকে নজির গড়েন চাহাল৷ একই সঙ্গে অস্ট্রেলিয়ায় ৬ উইকেট নিয়ে অজিত আগরকরের সঙ্গে ভারতীয় বোলারদের মধ্যে যুগ্মভাবে সেরা পারফরম্যান্সের দখল নিলেন বিরাটের দলের এই লেগ-স্পিনার৷

রান তাড়া করতে নেমে এদিন শুরুতেই রোহিতের (৯) উইকেট হারায় ভারত৷ তার পর ব্যক্তিগত ২৩ রানে ড্রেসিংরুমে ফেরেন শিখর ধাওয়ান৷ তার পর বিরাটের সঙ্গে ধোনির ৫৪ রান এবং কেদার যাদবের সঙ্গে সেঞ্চুরি পার্টনারশিপ ভারতকে ইতিহাস গড়তে সাহায্য করে৷ চতুর্থ উইকেটে ধোনি-কেদারের ১২১ রানের অবিভক্ত পার্টনারশিপ ভারতকে ম্যাচ ও সিরিজ জেতায়৷ ১১৪ বলে ৮৭ রানের অপরাজিত ইনিংস খেলেন ধোনি৷ আর ৫৭ বলে ৬১ রানে অপরাজিত থেকে ম্যাচ জিতিয়ে আসেন কেদার৷

রান তাড়া করা নিয়ে বিরাট বলেন, ‘এমসিজি-র পিচে রান তাড়া করা সহজ ছিল না৷ আমাদের লক্ষ্য ক্রিজে থেকে সিঙ্গলসের উপর ম্যাচ বের করা৷ প্রথম দিকে দুই ওপেনার আউট হওয়ায় কিছুটা হলেও নার্ভাস ছিলাম৷ তবে দলের কম্বিনেশন নিয়ে আশাবাদী ছিলাম৷’ এর পর নিউজিল্যান্ড সফরে যাবে ভারতীয় দল৷ কিউয়িদের বিরুদ্ধে পাঁচ ম্যাচের ওয়ান ডে এবং তিন ম্যাচের টি-২০ সিরিজ খেলবে বিরাটবাহিনী৷ সিরিজের প্রথম ওয়ান ডে ২৩ জানুয়ারি নেপিয়ারে৷