রোম: করোনা আতঙ্কে কাঁপছে গোটা বিশ্ব। মারাত্মক অবস্থা সৃষ্টি হয়েছে ইতালিতে। ইতিমধ্যে সেখানে মৃত্যু হয়েছে ১০ হাজার মানুষের। গত ২৪ ঘন্টায় নতুন করে মৃত্যু হয়েছে ১০০০ জনের। যা আগের সব রেকর্ড ভেঙে দিয়েছে।

সংবাদ সংস্থা এএফপি-র রিপোর্ট অনুযায়ী ইতালিতে মৃতের সংখ্যা ১০ হাজার ছাড়িয়েছে। চিনের পরই ইতালিতে মারাত্মক আকার ধারণ করতে শুরু করে এই ভাইরাস। অবস্থা এমন জায়গায় পৌঁছায়, একসময় চিনকেও ছাপিয়ে যায় ইতালি। ইতিমধ্যে করোনা রুখতে একাধিক পদক্ষেপ নিয়েছে সে দেশের প্রশাসন। সব ধরণের ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। সারা বিশ্বে এর আগে করোনায় এত বেশি লোকের মৃত্যু হয়নি। বলা যেতে পারে সম্পূর্ণ রূপে ভেঙে পড়েছে সে দেশের প্রতিরোধ।

ইউরোপে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্থ হল ইতালি। সেখানে প্রায় সবকিছু বন্ধ হয়ে গিয়েছে। সাধারণ মানুষ দীর্ঘদিন ধরে বাড়িতে থাকছেন। সে দেশের সরকার জানিয়েছে, আগামী এপ্রিলের ৩ তারিখ অবধি বন্ধ রাখা হয়েছে সব পরিষেবা। কিন্তু যতদিনে লকডাউন করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে, ততদিনে অনেক দেরি হয়ে গিয়েছে।

অন্যদিকে আক্রান্তের সংখ্যায় এবার চিন, ইতালিকে ছাড়িয়ে গিয়েছে আমেরিকা। এই মুহূর্তে বিশ্বের সবথেকে বেশি করোনা আক্রান্ত আমেরিকায়। ১ লক্ষের বেশি এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। মৃত হয়েছে এক হাজার ৭০৬ জন।

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে শনিবার পর্যন্ত বিশ্বজুড়ে মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ২৭ হাজার ৩৬০ জন। হু এবং ওয়ার্ল্ডোমিটারের তথ্য এমনই। তবে আফ্রিকায় ঢুকলেও এখনও তেমন মারণ যজ্ঞ সেখানে শুরু করেনি করোনা।

এছাড়া শনিবার রাত পর্যন্ত ভারতে কারণ আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ১০০০। স্বাস্থ্যমন্ত্রক এই তথ্য জানালেও বেসরকারি মতে দেশে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা আরো বেশি।

দেশের মধ্যে মহারাষ্ট্রে সবচেয়ে বেশি করোনা আক্রান্তের হদিস মিলেছে শনিবার রাত পর্যন্ত মহারাষ্ট্রে ১৮৬ জনের শরীরে কারণ আর সংক্রমণ ধরা পড়েছে। সংক্রমিত হওয়ার নিরিখে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে কেরালা। শনিবার রাত পর্যন্ত কেরালায় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ১৮২।