ত্রিপোলি: ৩৭.৫ মিলিয়ন মাদকদ্রব্য বাজেয়াপ্ত করল ইতালি পুলিশ৷ এই সমস্ত মাদকদ্রব্যগুলি আইএস জঙ্গিরা যুদ্ধের সময় ব্যবহার করত বলে পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে৷ এই সমস্ত মাদকদ্রব্যগুলির মধ্যে ছিল ট্রামাডলের মতন ক্ষতিকর বেশ কিছু মাদকদ্রব্যও৷ এই ট্র্যামাডল একটি সিন্থেটিক ওপিয়ড  ড্রাগ যেটি পেইনকিলার হিসেবেও ব্যবহৃত হয়৷ এই সমস্ত মাদকগুলি একটি মালবাহী জাহাজে ভারত থেকে লিবিয়ার দিকে যাচ্ছিল৷ ভারতের ফার্মেটিক্যালস সংস্থাগুলিতেই এই পেইনকিলার গুলি তৈরি হয়৷ এরপর এক একটি বিদেশি মুদ্রায় ২,৫০,০০০ এ বিক্রি করা হয়৷ এক্ষেত্রে প্রথমে ভারত থেকে শ্রীলঙ্কায় এই পেইনকিলারগুলিকে পাঠানো হয়৷ এই সংক্রান্ত সমস্ত তথ্য লোপাটের জন্য৷

সংবাদসংস্থার একটি প্রতিবেদন অনুযায়ী, এই মাদকদ্রব্যগুলি লিবিয়ার আইএস জঙ্গিদের কাছে অনেক দামে বিক্রি করে দেওয়ার অভিযোগ উঠছে৷ এই ৩৭মিলিয়ন ট্র্যামাডলগুলির দাম প্রায় ৭৫মিলিয়ন৷ জিনোয়া বন্দরে তিনটি আলাদা আলাদা প্যাকেটে এই  মাদকদ্রব্যগুলি উদ্ধার করেছে পুলিশ৷ এই সমস্ত মাদকদ্রব্যগুলি কম্বল এবং শ্যাম্পু হিসেবে বিক্রি করার চেষ্টা করছিল৷ তোবরুক এবং মিসরাটাতে লিবিয়ায় এই মাদকদ্রব্য পাচার করার চেষ্টা চলছিল৷

একজন ইতালি তদন্তকারী অফিসার বলেন, আইএস জঙ্গিরা এই ধরণের মাদকদ্রব্যগুলি মূলত ব্যবহার করে যাতে যুদ্ধের সময় তাদের আঘাত লাগলেও সেটি যুদ্ধে কোনও প্রভাব না পরে৷ এর পাশাপাশিই ওই অফিসার বলেন, মাদকদ্রব্যগুলিকে ভারত থেকে আমদানি করার পিছনে রয়েছে দুটি প্রধান কারণ৷ এগুলি হল, ইসলাম সন্ত্রাসবাদীদের আর্থিক ক্ষেত্রে যাতে বেশি ক্ষতি না হয় এবং জেহাদি যোদ্ধাদের শারিরীক উত্তেজক হিসেবে এই পেইনকিলার গুলি ব্যবহার করেন৷ শারিরীক চাপ প্রতিরোধ করার জন্যই এই পেইনকিলার গুলি ব্যবহার করা হয়ে থাকে৷

এই ট্রামাডোল পেইনকিলার গুলির এক একটি প্রায় ২ডলারে বিক্রি করা হয় লিবিয়াতে৷ তবে, এই ঘটনা এই প্রথম নয়৷ গত বছর গ্রীক বন্দর থেকে ২৬মিলিয়ন ট্রামাডোল পেনকিলার উদ্ধার হয়েছে৷