কলকাতা: মাসদুয়েক আগে তাঁর সঙ্গে প্রাথমিক পর্যায়ে যোগাযোগ করেছিল ক্লাব। অবশেষে ২৯ জুলাই লাল-হলুদ কর্তাদের ডাকে সাড়া দিয়ে ইস্টবেঙ্গলের নতুন কোচ হিসেবে চুক্তিবদ্ধ হয়েছেন মারগাঁওয়ের ফ্রান্সেসকো ব্রুটো দা কোস্তা। পর্তুগিজ কোচ নেলো ভিনগাদার সহকারী হিসেবে এর আগে আইএসএলে জোড়া ফ্র্যাঞ্চাইজির দায়িত্ব সামলেছেন ফ্রান্সেসকো। পাশপাশি সৈয়দ নঈমুদ্দিন এবং শ্যাম থাপার পর দেশের তৃতীয় কোচ হিসেবে বিদেশের জাতীয় দলের দায়িত্ব সামলানো গোয়ানিজের ঝুলিতে রয়েছে এএফসি প্রো লাইসেন্স।

কিন্তু ইস্টবেঙ্গল আইএসএল খেললে নিয়মের গেরোয় হেড কোচ হিসেবে দায়িত্ব সামলাতে পারবেন না মালয়েশিয়ার জাতীয় দলের প্রাক্তন এই কোচ। দুর্ঘটনার জেরে ঊনিশেই শেষ হয়ে গিয়েছিল ফুটবল কেরিয়ার। মাত্র কুড়ি বছর বয়সে কোচিং জগতে পদার্পণ করা ফ্রান্সেসকো বলছেন, কোনও বিদেশি কোচের অধীনে সহকারীর দায়িত্ব সামলাতে কোনও আপত্তি নেই তাঁর। কিন্তু ইস্টবেঙ্গল আইএসএল খেলুক, চাইছেন লাল-হলুদের নয়া কোচ।

গোল ডট কমকে গোয়ানিজ জানিয়েছেন, ‘ইস্টবেঙ্গল যদি আমার মাথার উপর কোনও বিদেশি কোচকে এনে বসায় তাতে আমি কিচ্ছু মনে করব না। আমার কাজ হবে দলের খেলায় অবদান রাখা এবং আমি সেরাটা দিয়ে সেটা করব। ইস্টবেঙ্গলকে সাফল্যের মুখ দেখানোই আমার প্রধান লক্ষ্য।’ ইনভেস্টর সমস্যায় ক্রমেই ক্ষীণ হচ্ছে ক্লাবের আইএসএল খেলার স্বপ্ন। তার উপর এফএসডিএল জানিয়ে দিয়েছে আসন্ন মরশুমে আইএসএলে নতুন কোনও দল নয়। এমতাবস্থায় লাল-হলুদের নতুন কোচ বলছেন, ‘দেশের সর্বোচ্চ লিগে খেলা সবসময় দারুণ ব্যাপার। কিন্তু এক্ষেত্রে কিছু শর্তপূরণের ব্যাপার রয়েছে, সেগুলো সম্ভব হলে নিশ্চয় আইএসএল খেলবে ইস্টবেঙ্গল। তবে গোটাটাই এআইএফএফ, এফএসডিএল এবং ইস্টবেঙ্গল ম্যানেজমেন্টের ব্যাপার। আমার এবিষয়ে কিছু বলার নেই। তবে ইস্টবেঙ্গলকে আইএসএলে দেখলে ভীষণ খুশি হব।’

একইসঙ্গে ইস্টবেঙ্গলের গরিমা, ক্লাবের ঐতিহ্য সম্পর্কে বলতে গিয়ে ব্রুটো গোল ডট কমকে জানিয়েছেন, ‘ইস্টবেঙ্গল এতবছর ধরে বিরল সব কৃতিত্ব অর্জন করেছে। ক্লাবের একটা সমৃদ্ধ ইতিহাস রয়েছে। শতবর্ষে এমন একটি ক্লাবের কোচ হতে পেরে আমি খুব গর্বিত একইসঙ্গে সম্মানিত।’ উল্লেখ্য, আইএসএলে নর্থ-ইস্ট ইউনাইটেড, কেরালা ব্লাস্টার্সের সহকারী কোচের দায়িত্ব সামলানোর পাশাপাশি এআইএফএফ’র এলিট অ্যাকাডেমির সঙ্গেও যুক্ত ছিলেন গোয়ানিজ এই কোচ, সামলেছেন অনুর্ধ্ব-১৪, অনুর্ধ্ব-১৭, অনুর্ধ্ব-১৯ দলের দায়িত্বও।

পপ্রশ্ন অনেক: একাদশ পর্ব

লকডাউনে গৃহবন্দি শিশুরা। অভিভাবকদের জন্য টিপস দিচ্ছেন মনোরোগ বিশেষজ্ঞ।