হায়দরাবাদ: কেন্দ্র যদি ১৪ এপ্রিল লকডাউন তুলেও দেয়, বহু তথ্যপ্রযুক্তি সংস্থা চাইছেন ‌ আপাতত আরও কিছুদিন কর্মীরা বাড়ি থেকে বসেই কাজ (work-from-home) করুক। সেজন্য কোনও কোনও সংস্থা ইতিমধ্যেই কর্মীদের জানিয়েছে ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত এই ভাবেই কাজ চালিয়ে যেতে। আবার কোনও কোনও সংস্থা আগামী বেশ কয়েক সপ্তাহ এই পদ্ধতিতে কাজ চালিয়ে যাওয়ার কথা ভেবেছে। কারণ লকডাউন উঠলেও তার পরেও যতদিন না করোনাভাইরাস একেবারে নির্মূল হচ্ছে ততদিন কর্মীরা যাতে প্রয়োজনীয় সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে পারে।

গোটা দেশে লকডাউন শুরুর আগেই তেলেঙ্গানা রাজ্য সরকার ৩১ মার্চ থেকে তা শুরু করেছিল এবং ১৪ এপ্রিল পর্যন্ত সময়সীমা পরে বাড়িয়ে দেয়, যাতে করোনা ভাইরাস ছড়িয়ে পড়তে না পারে। এই পরিস্থিতিতে এই রাজ্যের বেশ কিছু তথ্যপ্রযুক্তি এবং ফিনান্সিয়াল সার্ভিস কোম্পানি সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নিতে কর্মীদের বাড়ি থেকে কাজ করার ব্যাপারে সক্রিয় ছিল বলে খবর। পরবর্তীকালে লকডাউন ঘোষণা হলে সংস্থাগুলি দ্রুত নিশ্চিত করে সব কর্মীদের ওয়ার্ক ফর্ম হোম করার ব্যাপারে।

হায়দ্রবাদ সফটওয়্যার এন্টারপ্রাইজ অ্যাসোসিয়েশন (এইচ ওয়াই এস ই এ)-র সভাপতি মুরালি বলু জানিয়েছেন, বেশিরভাগ সংস্থা ব্যবসার ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে তৈরি হয়ে আছে লকডাউন উঠলেও আরও দু-তিন দিন কর্মীদের ওয়ার্ক ফ্রম হোম করানোর ব্যাপারে, যেহেতু ১৫ এপ্রিল দিনটি সপ্তাহের মাঝখানে পড়ছে। তাছাড়া যদি লকডাউন উঠে যায় সেক্ষেত্রে আইটি এবং আইটি এনেবেল সার্ভিস সংস্থাগুলি অফিস খুললেও কর্মীদের ‘অপশন’ দেওয়া হবে চাইলে ওয়ার্ক ফ্রম হোম করার বলে তিনি জানিয়েছেন।

তবে বেশ কিছু কর্মীর ক্ষেত্রে বাড়ি থেকে কাজ করার ব্যাপারে কিছু অন্তরায় রয়েছে সিস্টেম অথবা ইন্টারনেট সংযোগের অভাবজনিত কারণে। তাছাড়া ল্যাপটপের অভাব রয়েছে সব কর্মীদের তা দেওয়ার ব্যাপারে।

মুরালি বলু জানিয়েছেন, এই লকডাউনের মেয়াদ বাড়ানো হতে পারে আর তেলেঙ্গানা হল সেই পাঁচ ছটি রাজ্যের অন্যতম যেখানে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেশি। তাছাড়া ইউএস তে লকডাউন ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত বলা হয়েছে। আর এখানে বহু তথ্যপ্রযুক্তি সংস্থা রয়েছে যাদের সদর দপ্তর ওই দেশে। ফলে সেখান থেকে এদেশের অফিসগুলিতে নির্দেশ আসতেই পারে এপ্রিলের শেষ পর্যন্ত কর্মীদের ওয়ার্ক ফ্রম হোম করানোর ব্যাপারে। পাশাপাশি বলুর বক্তব্য, লকডাউন বাড়ানো হলে আরও দু সপ্তাহ বা তার বেশি তবে মাঝে কয়েকদিন রিলিফ দেওয়া হলো সে ক্ষেত্রে সংস্থাগুলি হয়তো বাড়ি থেকে কাজ করার বদলে উল্টো পদ্ধতিতে ফিরে আসতে চাইবে না যতদিন না পর্যন্ত করোনা নিয়ন্ত্রণে আসছে।

Proshno Onek II First Episode II Kolorob TV