নয়াদিল্লি: বিশ্বের তাবড় তাবড় ব্যাটসম্যানরা তাঁর আগুনে পেসের সামনে পড়ে নাকানিচোবানি খেয়েছেন। রাওয়ালপিন্ডি এক্সপ্রেসের আগুনে গতি সবার কাছেই ছিল আতঙ্কের আরেক নাম। অন্যথা নন সদ্য আন্তর্জাতিক ক্রিকেট সার্কিটে নিজেকে প্রাক্তন ঘোষণা করা যুবরাজ সিং।

সোমবার অবসর ঘোষণার পর প্রাক্তন ক্রিকেটার, একদা তাঁর সতীর্থ থেকে শুরু করে বর্তমান ক্রিকেটারদের শুভেচ্ছার বন্যায় ভাসছেন ২০১১ বিশ্বজয়ের নায়ক। তালিকায় বাদ যাননি রাওয়ালপিন্ডি এক্সপ্রেস শোয়েব আখতারও। ভারত-পাক ক্রিকেট ম্যাচ মানেই বাইশ গজে যুদ্ধের বাতাবরণ। একদা সেই যুদ্ধের অন্যতম শরিক বিপক্ষের ত্রাস রাওয়ালপিন্ডি এক্সপ্রেস।

সোমবার এক ভিডিওবার্তায় যুবরাজকে তাঁর ঈর্ষনীয় কেরিয়ারের জন্য ভূয়সী প্রশংসায় ভরিয়ে দেন তিনি এবং পরবর্তী জীবনের জন্য আগাম শুভেচ্ছা জানান বাঁ-হাতি ব্যাটসম্যানকে। শুভেচ্ছার প্রত্যুত্তরে সোশ্যাল মিডিয়ায় পালটা আখতারকে ছয় ছক্কার মালিক জানান, শোয়েব আখতারের ডেলিভারি সামলানো আমার কাছে আতঙ্কের সমান ছিল।

আরও পড়ুন: অভিযোগ সত্ত্বেও ‘জিং’ বেলেই আস্থা রাখছে আইসিসি

ভারতের জার্সি গায়ে সবধরনের ফর্ম্যাট মিলিয়ে ৩০৪ ম্যাচ খেলা যুবি সোমবারই আনুষ্ঠানিকভাবে তাঁর অবসর ঘোষণা করেন। এরপর এক ভিডিও মারফৎ রাওয়ালপিন্ডি এক্সপ্রেস প্রতিবেশী দেশের ক্রিকেটারকে শুভেচ্ছা জানিয়ে বলেন, ‘যুবরাজ একজন রকস্টার, একজন ম্যাচ উইনার এবং খুব ভালো বন্ধু। ২০০৩ সেঞ্চুরিয়নে দারুণ একটি ইনিংস খেলেছিল ও। আমি বরাবরই তাঁকে প্রথম সারির ব্যাটসম্যানদের তালিকায় স্থান দিয়ে এসেছি। ও একজন পঞ্জাবি এবং আমাদের ভাষাতেই কথা বলে।’

আরও পড়ুন: ধাওয়ানের পরিবর্ত হিসেবে পন্তকে দলে চান গাভাস্কর

আবেগঘন বার্তায় আখতারের আরও সংযোজন করে বলেন, ‘যুবরাজ দেশের জন্য অবাক কিছু করেছে। ২০১১ ভারতের বিশ্বজয়ের অখন্ড অংশ ছিল সে এবং স্টুয়ার্ট ব্রডকে এক ওভারে ৬ ছক্কা হাঁকানোর কথা সারাজীবন মনে রাখবে ক্রিকেট অনুরাগীরা। ও একজন প্রকৃত দেশপ্রেমিক এবং দুর্দান্ত একজন ম্যাচ উইনার। ওর ভবিষ্যতের জন্য আমার শুভেচ্ছা রইল।’

আখতারের ভিডিওবার্তায় চুপ থাকতে পারেননি যুবি। প্রত্যুত্তরে দেশের জার্সি গায়ে ২০০৭ ও ২০১১ বিশ্বজয়ের নায়ক রাওয়াল্পিন্ডি এক্সপ্রেসকে জানান, ‘তোমার শুভেচ্ছার কারণে অসংখ্য ধন্যবাদ। বিশ্বাস করো যতবার তুমি আমাকে বল করতে ছুটে এসেছো আমার মনে আতঙ্ক সৃষ্টি হয়েছে। তোমায় মোকাবিলা করার জন্য প্রচুর সাহস সঞ্চয় করতে হতো। আমাদের মধ্যে বেশ কিছু স্মরণীয় ব্যাটল রয়েছে যা আজীবন মনের মণিকোঠায় রয়ে যাবে।’