করাচি: সম্প্রতি সরফরাজ আহমেদকে সরিয়ে ওয়ান-ডে দলের অধিনায়ক পদে স্থলাভিষিক্ত হয়েছেন তিনি। তিনটি ফর্ম্যাটেই সাম্প্রতিক সময় দুরন্ত পারফরম্যান্স স্বরূপ এই পুরস্কারকে চ্যালেঞ্জ হিসেবেই গ্রহণ করছেন পাকিস্তানের পয়লা নম্বর ব্যাটসম্যান বাবর আজম। কিন্তু বিভিন্ন সময় ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলির সঙ্গে তাঁর যে তুলনা চলে আসে, সেই বিষয়টাকে একেবারেই উপভোগ করেন না তিনি। সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে বাবর সাফ জানালেন আমি এবং কোহলি দু’জনে ভিন্ন ঘরানার ব্যাটসম্যান, দু’জনের মধ্যে তুলনা না করাই শ্রেয়।

বাবর জানিয়েছেন, ‘দু’জনের মধ্যে যদি তুলনা না করা হয় সেটাই মনে হয় ভালো হবে। আমি আগেও বলেছি যে ও অন্য ঘরানার ক্রিকেটার, আমি একজন অন্য ঘরানার ক্রিকেটার। আমার কাছে ভালো ব্যাট করে দলকে জেতানোটাই সবচেয়ে বড় ব্যাপার।’ সাম্প্রতিক সময়ে নিজের ব্যাটিংকে তিনটি ভিন্ন ফর্ম্যাটে উচ্চতায় তুলে ধরেছেন বাবর। যার প্রভাব পড়েছে র‍্যাংকিংয়েও। আইসিসি র‍্যাংকিংয়ে দিনের পর দিন উন্নতি করে চলেছেন তিনি। অন্যদিকে ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলি আধুনিক যুগের ব্যাটিং গ্রেট হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেছেন আগেই।

সবমিলিয়ে দুই প্রতিবেশী দেশের দুই সাম্প্রতিক ব্যাটিং আইকনের মধ্যে তুলনাটা অযাচিতভাবেই চলে আসে। যদিও সেই তুলনা যে একেবারেই পছন্দ নয় তাঁর, সাফ জানালেন পাকিস্তানের নয়া ওয়ান-ডে দলনায়ক। সাক্ষাৎকারে বাবরকে প্রশ্ন করা হয় করোনা পরবর্তী সময়ে দর্শকশূন্য স্টেডিয়ামে ক্রিকেট আয়োজনের পরিকল্পনার বিষয়ে। জবাবে বাবর বলেন, তাঁরা ফাঁকা স্টেডিয়ামে ক্রিকেটের সঙ্গে ভালোমতোই অভ্যস্ত।

পাক তারকা ব্যাটসম্যান জানান, ‘অন্যান্য দলগুলোর চেয়ে আমাদের ফাঁকা স্টেডিয়ামে খেলার অভিজ্ঞতা অনেক বেশি কারণ দুবাইতে বিগত ১০ বছর ধরে আমরা বেশিরভাগ সময়টা দর্শকহীন স্টেডিয়ামেই খেলে এসেছি। যদিও এটা আমাদের কিংবা অনুরাগীদের জন্য খুব একটা ভালো বার্তা নয়।’

মহামারী করোনার কারণে আগামী অক্টোবরে টি২০ বিশ্বকাপের আকাশেও কালো মেঘ। এব্যাপারে প্রশ্ন করা হলে পাকিস্তান অধিনায়ক বলেন, ‘আমি নিশ্চিত এব্যাপারে চূড়ান্ত কোনও সিদ্ধান্ত গ্রহণ করার আগে আইসিসি সমস্ত দিক পর্যালোচনা করে তবেই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবে। অন্যদিকে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড তো বলেইছে নিরাপত্তার ব্যাপারে তাঁরা ১১০ শতাংশ নিশ্চিত হয়ে তবেই আসন্ন ইংল্যান্ড সফরে সম্মতি জানাবে।’

প্রশ্ন অনেক: দ্বিতীয় পর্ব