ফাইল ছবি

চেন্নাই: ‘ওয়ার্ক ফ্রম হোম’ কালচারে এবার অভ্যস্ত হতে হবে তথ্যপ্রযুক্তি কোম্পানির কর্মচারিদের৷ চেন্নাইয়ের কয়েকটি তথ্যপ্রযুক্তি সংস্থা তাদের কর্মচারিদের বাড়িতে বসে অফিসের কাজ করার নিদান দিয়েছে৷

প্রথমে শুনে মনে হতেই পারে, কী দারুণ সিদ্ধান্ত৷ বাড়িতে বসে অফিসের কাজ৷ কিন্তু এই সিদ্ধান্তের নেপথ্যে রয়েছে গুরুতর কারণ৷ তীব্র জলসঙ্কটে ভুগছে চেন্নাই৷ জলের হাহাকার শুরু হয়েছে৷ গেরস্থ্যের ঘর ছাড়িয়ে যার প্রভাব গিয়ে পড়েছে অফিস পাড়াতেও৷ জলের যোগান এতটাই কমে গিয়েছে যে কোম্পানিগুলিকে জল সাশ্রয়ের পথে হাটতে হচ্ছে৷ তাই বাধ্য হয়ে এমন সিদ্ধান্ত৷

বিভিন্ন সর্বভারতীয় মিডিয়ায় প্রকাশিত খবর অনুযায়ী, চেন্নাইয়ের ১২টি আইটি ফার্ম ‘ওয়ার্ক ফ্রম হোম’ অর্থাৎ বাড়িতে বসে কাজ করার পলিসি গ্রহণ করেছে৷ প্রায় ৫ হাজার কর্মীকে বলে দেওয়া হয়েছে আগামী ১০০ দিন অর্থাৎ তিনমাস দশ দিন বাড়িতে বসে কাজ করতে হবে৷ এছাড়া উপায় নেই৷

পরিস্থিতি কতটা উদ্বেগের তার প্রমাণ মিলেছে সরকারি ঘোষণাতেও৷ এর আগে তামিলনাড়ু সরকার চেন্নাই সহ ২৪টি জেলাকে খরা কবলিত বলে ঘোষণা করে৷ এই অবস্থা থেকে মুক্তি পেতে কেন্দ্রের সাহায্যপ্রার্থী হয়েছে পালানিস্বামীর সরকার৷ মোদী সরকারের কাছে পাঁচ হাজার কোটি টাকা চেয়েছে৷

২০১৭ সাল থেকে চেন্নাইতে বর্ষার ঘাটতি তৈরি হয়েছে৷ কম বৃষ্টিপাতের জেরে জলস্তর নেমে যায়৷ প্রধান জলাধারগুলির জল শুকিয়ে যায়৷ এদিকে ২০১৯ এ এখনও অবধি বৃষ্টি হয়নি৷ হাওয়া অফিস জানিয়েছে, আগামী তিনমাস পরিস্থিতির উন্নতির বিরাট সম্ভাবনা নেই৷ তাই জল সঙ্কট মেটাতে জলের ব্যবহার কম করার পথ নিয়েছে আইটি কোম্পানিগুলি৷