নয়াদিল্লি: মহাকাশ গবেষণার ক্ষেত্রে বড় বিনিয়োগ করল কেন্দ্রীয় সরকার। শুক্রবার এনডিএ সরকারের বাজেট পেশ হওয়ার পর ধন্যবাদ জানাল ইসরি। কারণ তাদের বাজেট বরাদ্দ বাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে।

এদিনের বাজটের প্রস্তাবিত হয়েছে যে ইসরোর নতুন একটি বাণিজ্যিক বিভাগ খোলা হবে। যার নাম হবে নিউ স্পেস ইন্ডিয়া লিমিটেড। বাজেট পেশ করার সময় একথা ঘোষণা করেছেন অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামনম।

ইসরোর বার্ষিক বাজেট পেরিয়েছে ১.৪৫ বিলিয়ন ডলার অর্থাৎ ১০ হাজার কোটির বেশি। পাঁচ বছর আগে এই বাজেট ছিল ৬০০০ কোটি। পাঁচ বছরে অনেকটাই বেড়েছে, তাই খুশি ইসরো কর্তৃপক্ষ।

একদিকে ২০৩০-এ ইসরো মহাকাশে ৩০ টনের স্পেস স্টেশন বসানোর পরিকল্পনা করছে। তাই বাজেট বাড়ায় গবেষণায় সুবিধা হবে বলেই মনে করা হচ্ছে।

মহাকাশ সংক্রান্ত প্রোগ্রামের দিকে বিশেষ জোর দিচ্ছে সরকার। গগণায়ন ও চন্দ্রায়ন- দুটি প্রজেক্টের উপর বিশেষ গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। গত বছর স্বাধীনতা দিবসের অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী গগণায়নের কথা ঘোষণা করেছিলেন। জানিয়েছিলেন শীঘ্রই ভারতীয়রা মহাকাশে যাবে। আপাতত সেই লক্ষ্যে কাজ চলছে। একইসঙ্গে চাঁদেও যাবে ভারতীয় মহাকাশযান।

এছাড়া, এবারের বাজেটে রেলে বিশেষ গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। আগামী কয়েক বছরের মধ্যে রেলে প্রচুর বিনিয়োগ করার কথা এদিন উল্লেখ করেছেন অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন। ২০১৮ থেকে ২০৩০-এর মধ্যে ৫০ লক্ষ কোটি টাকা বিনিয়োগ প্রয়োজন বলে জানানো হয়েছে। ৩০০ কিলোমিটার মেট্রো ও রেল প্রকল্পের অনুমোদনও দিয়েছে কেন্দ্র।

অন্যদিকে, নির্মলা সীতারমন প্রথম বাজেট নজর দিয়েছে বৈদ্যুতিক গাড়ির দিকে ৷ তিনি তাঁর বাজেট ভাষণে ১০,০০০ কোটি টাকা রেখেছেন ফাস্টার অ্যাডোপশন অফ ম্যানু্ফ্যাকটারি ইলেক্ট্রিক ভেহিকেল (FAME II) প্রকল্পে ৷ তিনি জানান, বৈদ্যুতিক গাড়ি কিনতে ঋণ নিলে দেড় লক্ষ টাকা পর্যন্ত সুদ আয়কর ছাড় দেওয়া হবে।

অর্থমন্ত্রী দাবি করেন, আড়াই লক্ষের বেশি করদাতা যারা গাড়ি কিনতে ঋণ নেয় তারা সুবিধা পাবেন ৷ তাছাড়া সরকার বৈদ্যুতিক গাড়ির ক্ষেত্রে জিএসটি ১২ শতাংশ থেকে কমিয়ে ৫ শতাংশ করা হয়েছে বাজেটে ৷