ঢাকা: ভারতের সুপ্রিম কোর্টের রায়ে নিষ্পত্তি হয়েছে বহু প্রতিক্ষিত অযোধ্যা মামলা। এই রায়ের পরে বিবৃতি দিয়ে ফের বিতর্ক উসকে দিল বাংলাদেশের জামাত ইসলামি। সংগঠনের আমির তথা প্রধান মকবুল আহমাদ বলেছেন, এই রায় রাষ্ট্রসংঘের ঘোষিত ধর্মীয় ও মানবাধিকার সনদের লঙ্ঘন।

সোমবার জামাতের তরফে বিবৃতিতে মকবুল আহমাদ বলেন, ‘বাবরি মসজিদ সংক্রান্ত মামলার রায়ে আমরা গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করছি। এ রায় ভারতের মুসলমানসহ মুসলিম উম্মাহর কাছে গ্রহণযোগ্য নয়।’ তিনি আরও বলেন, ‘ভারতের একটি সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠী জাতিসংঘ কর্তৃক ঘোষিত ধর্মীয় ও মানবাধিকার সনদ এবং ভারতীয় আইন লঙ্ঘন করে রাজনৈতিক শক্তির জোরে ৪৬০ বছরের পুরনো বাবরি মসজিদ ভেঙে দিয়ে মুসলমানদের ধর্মীয় অধিকারের প্রতি বৃদ্ধাঙ্গুলি প্রদর্শন করেছে।’

ভারতের উত্তর প্রদেশে অবস্থিত ছিল অযোধ্যার বিখ্য়াত বাবরি মসজিদ। ১৯৯২ সালে সেটি উগ্র হিন্দুত্ববাদী করসেবকদের হামলায় ভেঙে পড়ে। তারপরেই ভারতের বিভিন্ন এলাকায় ছড়ায় গোষ্ঠী সংঘর্ষ। সেই রেশ ধরে বাংলাদেশেও আক্রান্ত হন সংখ্যালঘু হিন্দুরা। সেই ঘটনার পর থেকে অযোধ্যা মামলার চূড়ান্ত রায়ের দিকে তাকিয়েছিল দুনিয়া।

ভারতের সুপ্রিম কোর্ট রায় দিয়েছে, বিতর্কিত ভূমি-তে রামলালার মন্দিরের পক্ষে। তবে তৈরি হবে মসজিদও। এই রায় ঘোষণার আগে থেকে কড়া নিরাপত্তায় মোড়া বিভিন্ন উত্তেজনা পূর্ণ এলাকা।