কলকাতা২৪x৭: সুপার সানডে’তে ডাবল হেডারে নিশ্চিত হয়ে গেল আইএসএলের টপ-ফোর এবং লিগ শিল্ড উইনার। গ্রুপ পর্বের শেষে এবার প্রতীক্ষা জোড়া সেমিফাইনাল এবং মেগা ফাইনালের। মুম্বই সিটি এফসি, এটিকে-মোহনবাগান প্রথম দু’টি দল হিসেবে আগেই নিশ্চিত করেছিল টপ-ফোর। এরপর গত শুক্রবার তৃতীয় দল হিসেবে সেমিফাইনাল যাত্রা নিশ্চিত করেছিল নর্থ-ইস্ট ইউনাইটেড। আর রবিবার হায়দয়ারাবাদ এফসি’কে রুখে দিয়ে চতুর্থ দল হিসেবে সেমিফাইনালে প্রবেশ করল এফসি গোয়া।

সেমিফাইনালে কোন দল কার মুখোমুখি হবে তাও নির্ধারিত হয়ে গেল লিগ পর্বের শেষে। লিগ টপার হিসেবে মুম্বই সিটি এফসি সেমিফাইনালে মুখোমুখি চতুর্থস্থানে শেষ করা এফসি গোয়ার। অন্য সেমিফাইনালে লড়াই জমবে দ্বিতীয় এবং তৃতীয় স্থানাধিকারীর মধ্যে। অর্থাৎ, দ্বিতীয় সেমিফাইনালে এটিকে মোহনবাগান মুখোমুখি হবে নর্থ-ইস্ট ইউনাইটেডের। প্রথম লেগ এবং ফিরতি লেগের সেমিফাইনালের দিন এবং ভেন্যু চুড়ান্ত হয়ে গিয়েছিল আগেই।

প্রথম লেগের সেমিফাইনাল দু’টি অনুষ্ঠিত হবে আগামী ৫ এবং ৬ মার্চ। আর ফিরতি লেগের ম্যাচদু’টি অনুষ্ঠিত হবে যথাক্রমে ৮ এবং ৯ মার্চ। ৫ মার্চ দুই প্রতিবেশী মুম্বই এবং গোয়ার মধ্যে প্রথম সেমিফাইনালের প্রথম লেগটি অনুষ্ঠিত হবে ফতোরদা স্টেডিয়ামে। আর এটিকে মোহনবাগান বনাম নর্থ-ইস্টের মধ্যে দ্বিতীয় সেমিফাইনাল অনুষ্ঠিত হবে জিএমসি ব্যাম্বোলিমে আগামী ৬ মার্চ। একই ভেন্যুতে সেমিফাইনালের দ্বিতীয় লেগ দু’টি অনুষ্ঠিত হবে যথাক্রমে ৮ এবং ৯ মার্চ।

দুই সেমিফাইনালের বিজয়ী আগামী ১৩ মার্চ মুখোমুখি হবে মেগা ফাইনালে। যা অনুষ্ঠিত হবে ফতোরদায়। এই নিয়ে রেকর্ড তৃতীয়বার আইএসএলের ফাইনাল অনুষ্ঠিত হতে চলেছে ফতোরদার নেহরু স্টেডিয়ামে। একইসঙ্গে সেমিফাইনালে অ্যাওয়ে গোলের বিষয়টি চলতি বছর গ্রাহ্য হবে না বলে আগেই জানিয়ে দেওয়া হয়েছিল আয়োজকদের তরফ থেকে। অ্যাগ্রিগেটে এগিয়ে থাকা দু’টি দলই আগামী ১৩ মার্চ ফাইনাল খেলার যোগ্যতা অর্জন করবে বলে জানিয়েছিল ফুটবল অ্যান্ড স্পোর্টস ডেভলপমেন্ট লিমিটেড।

সুপার সানডে’র দ্বিতীয় ম্যাচে এদিন লিগ শিল্ড জিততে মুখোমুখি হয়েছিল এটিকে মোহনবাগান এবং মুম্বই সিটি এফসি। ড্র করলেই শিল্ড উইনার হয়ে আগামী মরশুমে এসিএলে খেলার বিষয়টি নিশ্চিত ছিল ছিল হাবাসের দলের কাছে। অন্যদিকে জিততেই হত মুম্বইকে। হাইভোল্টেজ ম্যাচে এটিকে মোহনবাগানকে হারিয়ে শেষ হাসি হাসল আইল্যান্ডাররাই। টান দ্বিতীয়বার দু’টি ভিন্ন দলকে লিগ শিল্ড জিতিয়ে বিরল কৃতিত্ব অর্জন করলেন সার্জিও লোবেরা।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।