নয়াদিল্লি: সাধারণতন্ত্র দিবসের আগে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে গ্রেফতার সন্দেহভাজন আইএস জঙ্গিদের বিবৃতিতে স্তম্ভিত ন্যাশনাল ইনভেস্টেগেশন এজেন্সির (এনআইএ) অফিসাররা৷ সরকারকে উপড়ে ফেলে ভারতে শরিয়ত আইন প্রতিষ্ঠা করাই নাকি ছিল তাদের লক্ষ্য৷ ধৃত জঙ্গিরা এনআইএ-র গোয়েন্দাদের আরও জানায়, তারা মনে করে দোষীদের যোগ্য শাস্তি দিতে পারে একমাত্র শরিয়ত আইন৷  

জেরার মুখে ধৃত জঙ্গিরা আরও জানিয়েছে, তাদের লক্ষ্য ছিল ধীরে ধীরে অস্ত্রভাণ্ডার সমৃদ্ধ করে তোলা৷ ধৃত জঙ্গিদের সম্পর্কে আরও বেশি তথ্য সংগ্রহে আমেরিকা, জার্মান, অস্ট্রেলিয়া এবং ইজরায়েল সরকারের কাছে সাহায্য চাওয়া হবে বলে সিদ্ধান্ত নিয়েছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক৷ কারণ ভারতের এই জঙ্গিচক্র  এদেশের বাইরেও সক্রিয় রয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে.

সাধারণতন্ত্র দিবসের আগে দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে গ্রেফতার হওয়া ১২ জঙ্গিকে ৫ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত পুলিশ হেফাজতে পাঠিয়েছে বিশেষ এনআইএ আদালত৷ ট্রিলিয়ান এবং স্কাইপি’র মাধ্যমে আইএস জঙ্গিদের সঙ্গে তাদের যোগাযোগ রয়েছে বলে জানিয়েছে এনআইএ৷ ধৃতদের কাছ থেকে মোবাইল ফোন, ল্যাপটপ, টাকা-পয়সা, জিহাদি সাহিত্য, ভিডিও এবং বোমা তৈরির সরঞ্জাম উদ্ধার করা হয়েছে৷ সূত্রের খবর, ধৃত এই জঙ্গিরা ‘জানুদ-উল-খলিফা-ই-হিন্দ’-এর সদস্য৷ এই জঙ্গি গোষ্ঠী আইএসের মতাদর্শে অনুপ্রাণিত৷