গুয়াহাটি: সতর্কতা জারি হয়েছে সর্বত্র৷ সন্দেহভাজন কাউকে দেখলে বিশেষ তল্লাশি করা হবে৷ কারণ ইসলামিক স্টেট জঙ্গি হামলার নীল নকশায় রয়েছে কামাখ্যা মন্দিরের শহর তথা অসমের রাজধানী গুয়হাটি৷ সূত্র মারফত খবর এসেছে, এই শহরের একাধিক জনবহুল স্থলে বিস্ফোরণ ঘটাতে পারে জঙ্গিরা৷ অসমের বেশ কিছু সংবাদ মাধ্যম জানাচ্ছে এমনই খবর৷

এর আগে একাধিকবার অসমের বিভিন্ন এলাকায় ইসলামিক স্টেট জঙ্গিদের পতাকা উড়তে দেখা গিয়েছে৷ সেটা নিয়ে ছড়িয়েছে চাঞ্চল্য৷ আর শ্রীলঙ্কায় ধারাবাহিক বিস্ফোরণের দায় নিয়েছে এই জঙ্গি সংগঠন৷ দ্বীপরাষ্ট্রের ইসলামিক সংগঠন এনটিজে তাতে জড়িয়ে৷ আড়াইশোর বেশি মানুষের মৃত্যু হয়েছে৷ শ্রীলঙ্কায় হামলার পরেই ভারত ও বাংলাদেশে আইএস নাশকতার আশঙ্কা বেড়েছে৷ সম্প্রতি আইএস একটি বাংলায় লেখা বার্তা প্রকাশ করে৷ তাতে বাংলাদেশ ও ভারতের কিছু অংশ টার্গেট করা হয়েছে বলে গোয়েন্দাদের আশঙ্কা৷

আরও পড়ুন : প্রকাশ্য সভায় অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রীর মাথায় ডিম ছুঁড়ে গ্রেফতার তরুণী

অসম পুলিশের কাছে সূত্র মারফত খবর এসেছে, গুয়াহাটির অতি জনবহুল এলাকা পানবাজার ও কামাখ্যা মন্দির সন্নিহিত অঞ্চলে নাশকতা ঘটাতে পারে ইসলামিক স্টেট জঙ্গিরা৷ এই তালিকায় রয়েছে গুয়াহাটি রেল স্টেশন, হাইকোর্ট চত্বর৷ এছাড়াও জনবহুল রাজপথগুলিতে হামলা চালানো হতে পারে৷

সতর্কতা মূলক পদক্ষেপ হিসেবে ইতিমধ্যেই গুয়াহাটির সর্বত্র জারি করা হয়েছে সতর্কতা৷ শ্রীলঙ্কায় হামলা হয়েছিল চার্চ ও হোটেলে৷ সেই হামলার গতি প্রকৃতি ধরে নাগাল্যান্ডের সর্বত্র জারি হয় সতর্কতা৷ কারণ উত্তর পূর্বাঞ্চলের এই রাজ্য খ্রিষ্টান অধ্যুষিত৷ এর পরে উত্তর পূর্বের সবথেকে জনবহুল রাজ্য অসমের রাজধানীতে হামলার আশঙ্কা বাড়ল৷

আরও পড়ুন : রানওয়েতে পিছলে গিয়ে মুখ থুবড়ে পড়ল বাংলাদেশ বিমান

অসম এমনিতেই বিচ্ছিন্নতাবাদী হামলায় বারে বারে রক্তাক্ত হয়েছে৷ জঙ্গি সংগঠন আলফা (স্বাধীনতা), বোড়ো সংগঠন এনডিএফবি (সংবিজিৎ) একাধিক নাশকতা ঘটিয়েছে রাজ্যের বিভিন্ন এলাকায়৷ তবে সম্প্রতি আইএস সক্রিয়তা লক্ষ্য করা গিয়েছে৷ বিশেষ করে অসম-বাংলাদেশ সীমান্তবর্তী এলাকায় জেএমবি তৎপর৷ তাদের সঙ্গে নিয়েই আইএস হামলা চালাতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে৷

পশ্চিমবঙ্গের খাগড়াগড় বিস্ফোরণের পর উঠে এসেছিল জেএমবি কেমন করে ভারত থেকে শিবির পরিচালনা করে বাংলাদেশে অস্থিরতা তৈরি ও শেখ হাসিনাকে খুনের ষড়যন্ত্রে লিপ্ত৷ সেই বিস্ফোরণের তদন্ত সূত্র ধরে অসমেও ছড়িয়ে থাকা জেএমবি চক্রের হদিস মেলে৷ পরবর্তী সময়ে ঢাকার গুলশনে ভয়াবহ জঙ্গি হামলায় আইএস দায় নেয়৷ সেই নাশকতার তদন্তেও অসম-বাংলাদেশ সীমান্তেও জঙ্গি তৎপরতার হদিস মেলে৷