মধ্যপ্রাচ্যের ত্রাস আইএসের অস্ত্র ক্ষমতা চমকে দেয় বিশ্বকে

কলকাতা: লখনউয়ে আইএস (ISIS) জঙ্গি সইফুল্লাকে খতম করা হয়েছে৷ উঠে আসছে একের পর এক চাঞ্চল্যকর তথ্য৷  জঙ্গি দমন অভিযান শেষে এটিএস জানায়, নিহত জঙ্গি সইফুল্লার কাছে মিলেছে ৬০০-র বেশি কার্তুজ,  ৮টি রিভলভার, প্রচুর বিস্ফোরক, টাকা ও সোনা৷  চমকে গিয়েছে এটিএস৷
ভারতের ইসলামিক স্টেটের হামলা ঘিরে বিভিন্ন গোয়েন্দা এজেন্সি সতর্ক বার্তা আগেই দিয়েছে৷ এবার উঠে এসেছে আইএসের হাতে কী পরিমাণ মারাত্মক অস্ত্র সম্ভার রয়েছে তার তথ্য৷

আরও পড়ুন : আলিগড়ের ইঞ্জিনিয়ারিং ছাত্রই বিস্ফোরণের মাস্টারমাইন্ড

১. সোভিয়েত T-72 ট্যাংক
ইরাকি সেনার হাতে ছিল পূর্বতন সোভিয়েত জমানার এই ট্যাংক৷ আইএস দমন অভিযানে গিয়ে ১০টি ট্যাংক খুইয়েছে ইরাকের সেনা বাহিনী৷ তাদের কিছু রয়েছে ইসলামিক স্টেটের দখলে৷ সোভিয়েত T-72 ট্যাংকের ক্ষমতার জেরে আইএসের গোলন্দাজ বাহিনী বিশেষ শক্তিশালী৷
২. টাইপ 59 আর্টিলারি
সমর বিজ্ঞানে এর বিশেষ কদর রয়েছে৷ এই মারণাস্ত্র ১৯৫০ সালে সোভিয়েত জমানায় তৈরি ও আধুনিকী করম হয়েছিল৷  সম্প্রতি আইএস ইরাকের মাটিতে এর প্রয়োগ করে৷ তাতে প্রভূত ক্ষতি হয় যৌথ সেনার৷

- Advertisement -

আরও পড়ুন : লখনউ: অপারেশন শেষে পুলিশের গুলিতে খতম জঙ্গি

৩.  FIM-92  স্টিঙ্গার
এই আমেরিকান মিসাইল রয়েছে আইএস দখলে৷ মার্কিন সংবাদ মাধ্যম ফক্স নিউজ জানাচ্ছে, এই ধরণের কিছু মিসাইল সম্প্রতি উদ্ধার করাল হয়েছে আইএস কবল মুক্ত এলাকা থেকে৷ সেখান থেকেই ধারণা, বিধ্বংসী মিসাইলের বিপুল ভাণ্ডার রয়েছে তাদের দখলে৷
সিঙ্গার মিসাইল হালকা ও কাঁধে বহন যোগ্য৷ এর সাহায্যে শত্রুপক্ষের ঘাঁটি গুঁড়িয়ে দেওয়া খুবই সহজ৷ লাগাতার সেই অস্তর ব্যবহার করেছে ইসলামিক স্টেট৷
৪. ZU-23-2  সের্গি অ্যান্টি এয়ারক্রাফট ক্যানন
এই অস্ত্র সোভিয়েত জমানায় তৈরি৷ ২০১৫ সালে মার্কিন সংবাদ মাধ্যমে বলা হয়, বিমান ধংসকারী এই কামান রয়েছে আইএসের দখলে৷ এর সাহায্যে ইরাকে অবস্থানকারী মার্কিন হেলিকপ্টার বাহিনীকে টার্গেট করে আইএস জঙ্গিরা৷

আরও পড়ুন : জোরালো হচ্ছে ISI যোগ! নেপাল থেকে এক্সপার্ট এসে বোমা পুঁতেছিল রেললাইনে

৫. রাসায়নিক অস্ত্র
সব থেকে ভয়ঙ্কর অস্ত্র তালিকার অন্যতম৷ আইএস মজিত করেছে রাসায়নিক অস্ত্র ভাণ্ডার৷ সাম্প্রতিক রিপোর্টে বলা হয়েছে, কুর্দিস সেনার বিরুদ্ধে লাগাতার রাসায়নিক অস্ত্রের প্রয়োগ করেছে৷ ইরাকের রাজধানী বাগদাদ সংলগ্ন রাসায়নিক অস্ত্র কেন্দ্রের দখল নিয়েছিল আইএস৷ সেটি দখল করেই প্রবল ক্ষমতাধর হয়ে ওঠে বাগদাদির বাহিনী৷
৬. HJ-8
এক ধরণের চিনা মিসাইল৷ এই অস্ত্র রয়েছে আইএস দখলে৷ ১৯৮০ দশকে চিন সরকার এই মিসাইলের শক্তি বাড়িয়েছিল৷ হামলার সময় ৯০ শতাংশ সফলতা দেয় এই চিনা মিসাইল৷ আইএস এই চিনা মিসাইলকে বিমান ধংসকারী অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করে৷
৭. SA-7  গ্রেল
ওয়াশিংটন পোস্টের খবর অনুযায়ী আইএসের কিছু ভিডিওতে দেখা গিয়েছে এই অস্ত্র৷ এটি এক ধরণের মিসাইল৷ কাঁধে বহনযোগ্য৷ আইএস জঙ্গিরা এই মিসাইল নিয়ে পজিশন নিয়েছে৷ এমনই ভিডিও দেখা গিয়েছে৷

All rights reserved by @ Kolkata24x7 II প্রতিবেদনের কোন অংশ অনুমতি ছাড়া প্রকাশ করা আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ