ওয়াশিংটনঃ বিশ্বে নতুন করে জঙ্গি হামলার মতো ঘটনা ভয়ঙ্করভাবে বেড়ে যাবে। চলতি বছরের শেষে তা ভয়ঙ্কর আকার নেবে। এমনটাই হুঁশিয়ারি দিয়ে জানিয়েছে রাষ্ট্রসংঘ। ইসলামিক স্টেট বা অন্য জঙ্গি গোষ্ঠীতে যোগ দেওয়া হাজার হাজার বিদেশি মদদপুষ্ট জঙ্গিরা এখনও জীবিত। আর সেই কারণে এমন চাঞ্চল্যকর আশঙ্কার কথা প্রকাশ করেছে রাষ্ট্রসংঘ।

রাষ্ট্রসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের বিশেষ পর্যবেক্ষণ বিভাগ এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, বর্তমান পরিস্থিতিতে যদিও বিশ্বে জঙ্গি হামলার মতো ভয়ঙ্কর ঘটনার মাত্রা অনেক কমে গিয়েছে। তবে ইরাক ও সিরিয়ায় আইএসের পক্ষে লড়াই করতে যাওয়া জঙ্গিদের মধ্যে এখনও ৩০,০০০ জঙ্গি জীবিত রয়েছে। আর তা থাকায় বিশ্বে জঙ্গি হামলার বড় ধরনের আশঙ্কা রয়ে গিয়েছে বলে মনে করছে রাষ্ট্রসংঘ।

২০‌১৪ সালে ইউরোপ থেকে বেশি মাত্রায় জঙ্গিরা আইএসে যোগ দেয়। ইরাক ও সিরিয়ায় আইএস তখন সেখানে বর্বরোচিত হামলা এবং নৃশংস হত্যাকাণ্ড চালায়। ইউরোপের দেশগুলো স্বীকার করেছে যে তাদের ৬০০ জন নাগরিক আইএস সহ অন্য গোষ্ঠীর পক্ষে লড়াই করার জন্য ইরাক ও সিরিয়াতে গিয়েছে। এর মধ্যে কিছু অংশ নিহত হয়েছে। কিছু অংশ এসব দেশে আটক হয়েছে বা অন্য কোথাও পালিয়ে গিয়েছে।

এদিকে, আইএসের যোগ দেওয়া জঙ্গিদের ফিরিয়ে নিতে চায় না ইউরোপের দেশগুলি। কারণ এই সমস্ত জঙ্গিরা নিজ দেশে ফিরে গেলে তারা সেখানকার নিরাপত্তার জন্য মারাত্মক হুমকি হয়ে উঠবে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করছে ইউরোপ। এরই পরিপ্রেক্ষিতে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প সম্প্রতি ইউরোপীয় ইউনিয়নভুক্ত দেশগুলোকে হুমকি দিয়ে বলেছেন, সিরিয়া ও ইরাকে আটক ইউরোপে মাটিতে বেড়ে ওঠা জঙ্গিদের তারা যদি ফিরিয়ে নিতে ব্যর্থ হয় তাহলে তিনি তাদেরকে মুক্তি দিয়ে দেবেন যাতে এই সমস্ত জঙ্গিরা নিজেদের দেশে প্রবেশ করে।