নয়াদিল্লি: নয়া তথ্য স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের হাতে৷ এবার খালিস্তানপন্থীদের সঙ্গে নাশকতার পরিকল্পনা করছে আইএসআই৷ ভারতে হামলা চালাতে ব্যবহার করা হবে খালিস্তানপন্থী গোষ্ঠীগুলিকে বলে সূত্রের খবর৷ মূলত পঞ্জাব ও সীমান্ত এলাকায় এই নাশকতার ছক কষা হচ্ছে৷

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রককে এই ইস্যুতে একটি রিপোর্ট পাঠিয়েছে গোয়েন্দা দফতর৷ রিপোর্টে জানা গিয়েছে খালিস্তানপন্থীদের নয়া নাশকতার পরিকল্পনার নাম প্রজেক্ট হারভেস্টিং কানাডা৷ যেখানে মূলত প্রাক্তন সেনা কর্মী ও পুলিশ কর্মীদের নিশানা করে হামলা চালানোর কথা উল্লেখ করা হয়েছে৷ আইএসআইয়ের উচ্চপদস্থ কিছু আধিকারিক এই প্রজেক্টের বিষয়ে জানেন বলে খবর৷

আরও পড়ুন : সাতসকালে আইইডি বিস্ফোরণ, গুরুতর জখম ১১ নিরাপত্তাকর্মী

রিপোর্ট বলছে, কানাডায় অবস্থিত কিছু খালিস্তানপন্থী জঙ্গি গোষ্ঠী সক্রিয় হয়ে উঠে আইএসআইয়ের সঙ্গে হাত মিলিয়েছে৷ তবে শুধু পঞ্জাবই নয়, গোটা দেশ জুড়ে অস্থিরতা তৈরি করাই তাদের উদ্দেশ্য৷

এর পাশাপাশি, এই জঙ্গিগোষ্ঠীগুলি চাইছে দেশের মধ্যে নিজেদের কাজের সুবিধার জন্য কিছু মডিউল তৈরি করতে৷ এজন্য বেশ কিছু ভুয়ো নথিপত্র তৈরি করা হয়েছে বলে সূত্রের খবর৷ সেনার সঙ্গে যোগ রয়েছে, এমন নথি তৈরি করা হয়েছে৷ ইতিমধ্যেই আইএসআইয়ের তৈরি করা সেই সব ভুয়ো নথি খালিস্তানি জঙ্গিদের হাতেও পৌঁছে গিয়েছে৷ দেদার ব্যবহার করা হচ্ছে সোশ্যাল মিডিয়াকেও৷

দেশের মধ্যে খলিস্তানপন্থী মডিউল তৈরি করতে শিখ যুবকদের মগজধোলাই করা হবে ও বিশেষ প্রশিক্ষণ দেওয়া হতে পারে বলে আশংকা প্রকাশ করা হয়েছে ওই রিপোর্টে৷

আরও পড়ুন : মোদীর শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে আমন্ত্রিত নন ইমরান

সোমবারই জানা গিয়েছিল, পাঠানকোটে আবারও নাশকতার ছক কষেছে পাক গুপ্তচর সংস্থা আইএসআই৷ এবার তাদের টার্গেট দুটি রেলস্টেশন৷ বিস্ফোরণ ঘটিয়ে রেলস্টেশন দুটি উড়িয়ে দেওয়া হবে৷ এমনই ছক আইএসআইয়ের৷ হামলার পরিকল্পনা জানার পরই ভারতীয় রেলকে সতর্ক করেছে গুপ্তচর সংস্থাগুলি৷ তারপরেই স্টেশনে জারি হাই অ্যালার্ট৷

গুপ্তচর সংস্থার খবর পেয়ে পাঠানকোট ক্যান্টনমেন্ট স্টেশন ও পাঠানকোট জাংশনকে নিরাপত্তার বলয়ে মুড়ে ফেলা হয়েছে৷ স্টেশনে আসা প্রত্যেকের গতিবিধির উপর নজরদারি আরও বাড়ানো হয়েছে৷ গাড়ি পার্কিংয়ের জায়গায় অনবরত চেকিং চলছে৷ রেল কর্মীদের সেখানে গাড়ি পার্কিংয়ে আপাতত নিষেধ করা হয়েছে৷ স্টেশন বা প্ল্যাটফর্মে সন্দেহজনক ভাবে কোনও ব্যাগ বা অন্য কিছু পড়ে থাকতে দেখলে সঙ্গে সঙ্গে চেকিংয়ের ব্যবস্থা করা হয়৷

অবস্থানের নিরিখে স্টেশনদুটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ৷ দুটি স্টেশনই একেবারে পঞ্জাব সীমান্ত লাগোয়া৷ পাঠানকোট ক্যান্টনমেন্ট স্টেশনটি এয়ার ফোর্স স্টেশন থেকে মাত্র দু’কিমি দুরে৷ এই স্টেশন থেকে ভারত-পাক আন্তর্জাতিক সীমানার দুরত্ব মাত্র ২০ কিমি৷ ২০১৬ সালে পাঠানকোটের বায়ুসেনা শিবিরে জঙ্গি হামলায় সাত জওয়ান নিহত হন৷ চার দিন ধরে চলা অপারেশনে ছয় জঙ্গিকে খতম করা হয়৷

পচামড়াজাত পণ্যের ফ্যাশনের দুনিয়ায় উজ্জ্বল তাঁর নাম, মুখোমুখি দশভূজা তাসলিমা মিজি।