ফাইল ছবি

কলকাতা২৪x৭: ব্যাটসম্যানরা ধারাবাহিক নন একেবারেই। রঞ্জি ট্রফির শুরু থেকে বাংলা শিবিরে যা অন্যতম প্রধান সমস্যা। অবস্থা যখন বেগতিক, দল যখন বিপদে পড়েছে তখন ঢাল হয়ে দাঁড়িয়েছেন বোলাররা। কর্ণাটকের বিরুদ্ধে চলতি রঞ্জি ট্রফির সেমিফাইনালেও চিত্রটা প্রায় একই। প্রথম ইনিংসে প্রথম সারির ব্যাটিং ব্যর্থতার পর ১৪৯ রান করে বিপদরক্ষা করেছিলেন অনুষ্টুপ মজুমদার।

অনুষ্টুপের সৌজন্যে প্রথম ইনিংসে কোনক্রমে ৩০০ রানের গন্ডি পার করা বাংলাকে এরপর দিশা দেখান পেসাররা। আর সামনে থেকে অরুণ লাল ব্রিগেডের পেস অ্যাটাককে শুরু থেকে নেতৃত্ব দিচ্ছেন যিনি, তিনি হুগলির ছেলে ইশান পোড়েল। অনুর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে ঈর্ষণীয় পারফরম্যান্সে এসেছিলেন লাইমলাইটে। এরপর থেকে বাংলা পেস বিভাগের নিয়মিত সদস্য ইশান চলতি রঞ্জি ট্রফিতে শুরু থেকেই স্বপ্নের ফর্মে। মূলত তাঁর ৫ উইকেটে ভর করেই প্রথম ইনিংসে শক্তিশালী কর্ণাটককে প্রথম ইনিংসে ১৯০ রানে পিছনে ফেলেছে বাংলা।

ডানহাতি পেসারের স্যুইং সামলাতে নাজেহাল অবস্থা তারকাখোচিত কর্ণাটক ব্যাটিং লাইন আপের। দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাটসম্যানদের ব্যাটিং ব্যর্থতায় স্কোরবোর্ডে ১৬১ রানের বেশি তুলতে পারেনি বাংলা শিবির। ম্যাচ জয়ের জন্য ৩৫২ রানের পুঁজি নিয়ে তৃতীয়দিন কর্ণাটকের দ্বিতীয় ইনিংসে প্রথম ধাক্কাটা দিলেন সেই ইশান। ইনিংসের দ্বিতীয় বলে তাঁর একটি নিখুঁত ইনকাটারে ঠকে গেলেন সাম্প্রতিক সময়ে সংক্ষিপ্ত ফর্ম্যাটে বিরাট কোহলির অন্যতম সেনানী কেএল রাহুল। আর এহেন ইশানকে নিয়ে তৃতীয়দিন খেলা শেষে সাংবাদিক সম্মেলনে উচ্ছ্বসিত বাংলার কোচ অরুণ লাল।

সোমবার সাংবাদিকদের অরুণ লাল বলেন, ‘ওর হাতে দুর্দান্ত স্যুইং রয়েছে। জাতীয় দলের জন্য প্রস্তুত ও।  দক্ষতাকে আগামী দিনগুলোতে যদি সঠিকভাবে কাজে লাগাতে পারে ইশান তাহলে ভবিষ্যতের তারকা হয়ে ওঠার সম্ভাবনা ওর মধ্যে প্রবল।’ তবে শুধু ইশান নন, অরুণ লালের প্রশংসা কুড়িয়ে নিয়েছেন দলের পেস অ্যাটাকে ইশানের দুই সঙ্গী আকাশ দীপ ও মুকেশ কুমারও।

পাশাপাশি তৃতীয়দিনের শেষে দল অ্যাডভান্টেজ অবস্থায় রয়েছে স্বীকার করে নিয়েও বাংলা কোচ জানিয়েছেন, ক্রিকেট অনিশ্চয়তার খেলা। দ্বিতীয় ইনিংসে আমরা ১০০ রান কম করেছি। যদি সেটা হত তাহলে প্রতিপক্ষের কাঁধে আরেকটু বোঝা চাপিয়ে দেওয়া যেত। সবমিলিয়ে যা পরিস্থিতি তাতে বাংলা আর রঞ্জি ফাইনালের মধ্যে দূরত্ব ৭ উইকেটের। অন্যদিকে কর্নাটকের ম্যাচ জিততে প্রয়োজন ২৫৪ রান। মঙ্গলবার ইডেন গার্ডেন্সে এক দুর্দান্ত লড়াই দেখার অপেক্ষায় ক্রিকেট অনুরাগীরা।