নিউজ ডেস্ক, কলকাতা: সোশ্যাল মিডিয়ায় কী আপনার আনাগোনা রয়েছে? তাহলে একটা বিষয় নিশ্চয় আপনার চোখে পড়েছে৷ তা হল হঠাৎই বয়স বেড়ে গিয়েছে আপনার চারপাশের অনেকের৷ আর নিজেদের বার্ধক্যের সেই সব ছবিই হাসতে হাসতে শেয়ার করছেন আপনার পরিচিতরা৷ ভবিষ্যত কে না আগেভাগে দেখতে চায় বলুন তো? তা বলে বার্ধক্য? হ্যাঁ, নেটিজেনরা এখন অনেকেই মজে বুড়ো হওয়ার খেলায়৷

মাঝেমধ্যেই সোশ্যাল মিডিয়ায় এমন অনেক ট্রেন্ড দেখতে পাওয়া যায়, যেখানে কখনও আপনি ইয়ং হতে পারেন, কখনও বা আপনার নামের অর্থ, কিম্বা কীভাবে মৃত্য হবে আপনার, এমনই হাজারো খেলা চলতে থাকে৷ আর এবার তেমনই একটি ট্রেন্ড হল ফেস অ্যাপ ব্যবহার করে আপনি আপনার বার্ধক্যের ছবি দেখতে পাবেন৷ অনেকে যেখানে আনন্দের সঙ্গে এই প্রযুক্তির ব্যবহারে নিজের বার্ধক্যকে দেখছেন, অনেকেই আবার এসব থেকে শত হস্ত দূরে৷ আর তার পিছনে কারণটা অবশ্যই নিরাপত্তা৷ ফেস অ্যাপও যে প্রশ্নটা উসকে দিয়েছে৷

কেউ কেউ মনে করছেন, এই অ্যাপ ব্যবহার করতে গেলে যে শর্ত মেনে নিতে হচ্ছে তাতে আপনার মোবাইল ফোনে থাকা তথ্যগুলির সুরক্ষার দিকটি নিয়ে প্রশ্ন উঠছে৷ কারণ আপনি ইয়েস বাটনে ক্লিক করে, আপনার মিডিয়া স্টোর থেকে শুরু করে আরও অনেক কিছুর দরজাই খুলে দিচ্ছেন অপরিচিত একটি অ্যাপের জন্য৷ যার থেকে আপনার মোবাইলের গোপন তথ্যগুলো আর গোপন না থাকার আশঙ্কা দেখা দিচ্ছে৷ ইতিমধ্যেই আমজনতা থেকে সেলেব অনেকেই এই অ্যাপ ব্যবহার করেছেন৷ আবার ভক্তেরাও মজা করে নিজের প্রিয় সেলেবের ছবিকে এই অ্যাপে বসিয়ে তার বার্ধক্যের অবস্থাকে তুলে ধরেছে৷

পড়ুন: “অ্যাপ”দার্থ

ঠিক দুবছর আগে এভাবেই উড়ো চিঠি কাঁপিয়ে দিয়েছিল সোশ্যাল মিডিয়া৷ ফেসবুক ব্যবহারকারীরা যাকে সারাহা ডট কম(Sarahah.com) নামে ব্যবহার করেছিল৷ আপনার ফেসবুক প্রোফাইলে থাকা কোনও বন্ধু সম্পর্কে আপনি কি ভাবেন, আপনার মতামত কি, নাম গোপন রেখে সহজেই তা জানিয়ে দিতে পারবেন তাকে, এমনই সুযোগ করে দিয়েছিল এই অ্যাপ৷ পরবর্তীকালে স্টুলিশ নামে একটি অ্যাপও প্রায় একই সুযোগ করে দিয়েছিল৷ তবে সে সময়ও এই সারাহা প্রসঙ্গেই, এই মজা উল্লাসের মধ্যেই সিঁদুরে আশঙ্কার মেঘ দেখেছিলেন আইটি বিশেষজ্ঞরা৷

ন্যাসকমের পূর্বাঞ্চলীয় অধিকর্তা সুপর্ণ মৈত্রী জানিয়েছিলেন, অসতর্ক ভাবে এমন অজানা, অচেনা অ্যাপেতে ইমেল শেয়ার করার ফলেই দিন-দিন বাড়ছে হ্যাকিং৷ ইমেল আইডির মাধ্যমে রেজিস্টার করায়, চাইলে কোনও ব্যক্তির সমস্ত গোপন তথ্যের কন্ট্রোল সহজেই নিয়ে নিতে পারবে কোম্পানিটি৷ সহজেই হাতিয়ে নেওয়া যাবে কারও ব্যাংক সংক্রান্ত তথ্য, কোনও গোপন নথি৷ সুপর্ণ বাবুর কথায়, অনলাইনে যেকোনও বিষয়ে নিজের ব্যক্তিগত বস্তু শেয়ার করার আগে দেখে নিতে হবে কেন করছি, কোথায় করছি৷

পড়ুন: ভাইরাল ‘সারাহা’ পিছনে থাকা এই রহস্যটা কি আপনি জানেন? জানলে চমকে যাবেন

তাই সোশ্যাল মিডিয়ায় আনন্দ-মজা-উল্লাস সবই ঠিক আছে, কিন্তু তার পাশাপাশি আপনাকে সতর্ক থাকতে হবে আপনি কোনও পাতা ফাঁদে পা দিয়ে ফেলছেন না তো?