কলকাতা: ধুমধুামের সঙ্গে ঘরে বউ নিয়ে এসেছে রাজ। কিন্তু বিয়ের পরেই শুরু হয়েছে রাজের জীবনে অশান্তি। একের পর এক বন্ধ হয়ে যাচ্ছে সব প্রজেক্ট। ইতিমধ্যেই বাতিল হয়ে গিয়েছে পরিচালকের ‘টং লিং’। এদিকে ‘সিরাজউদ্দৌলা’ কবে হবে তার ঠিক নেই। এখন আবার শোনা যাচ্ছে ‘কাটমুণ্ডু টু কম্বোডিয়া’ও আর হচ্ছে না। সব মিলিয়ে এখন মাঝ সমুদ্রে খাবি খাচ্ছেন নতুন বর।

কিন্তু টিজার পোস্টার, ফাস্টলুকের পর, কেন বন্ধ হয়ে গেল ‘কাটমুণ্ডু টু কম্বোডিয়া’-এর শ্যুটিং! তাই নিয়ে চলছে টলিপাড়ায় জলঘোলা। শোনা যাচ্ছে, যীশু নাকি ব্যাকস্টেপ করেছেন ছবিটি থেকে। কারণ এই মুহূর্তে তাঁর হাতে রয়েছে প্রচুর ছবির অফার। তাছাড়া রাজের সিনেমার চিত্রনাট্যও নাকি পছন্দ হচ্ছে না অভিনেতার।

আরও পড়ুন: টলিপাড়ার নতুন ফেলুদা

তবে যে শুধু যীশু ‘কাটমুণ্ডু’ প্রজেক্ট থেকে সরে এসেছেন তা নয়! সিনেমার অন্য হিরো সোহমও পিছু হটেছেন। সূত্রের খবর, সোহমের চরিত্রটি নাকি তেমন জোড়াল নয়। এসবের সঙ্গে অন্য একটি কথাও শোনা যাচ্ছে। যীশু থেকে সোহম সবার নাকি রুদ্রনীলের চরিত্রটি বেশি ভালো লেগেছে!

অন্যদিকে বেঁকে বসেছেন ছবির প্রযোজক সংস্থাও। তাঁদের বক্তব্য, কম্বোডিয়ায় শ্যুটিং করতে গেলে বাজেট অনেকটাই বেড়ে যাচ্ছে। তাই অন্য জায়গার কথা ভাবছে তাঁরা। সুতরাং এর পর যদি রাজ নতুন চিত্রনাট্য তৈরি করেন, সেখানে কম্বোডিয়া যাত্রা হবে কিনা সন্দেহ আছে! তবে রাজের ‘কাটমুণ্ডু টু কম্বোডিয়া’ এখন বিশ বাঁও জলে তাঁর নিশ্চিত।

আরও পড়ুন: জনপ্রিয় মডেলকে খুনের হুমকি ব্যবসায়ীর স্ত্রী

তবে সেসব ছাড়িয়ে টলিপাড়া কিন্তু এখন অন্য গল্পে মশগুল। নিন্দুকেরা বলছেন, রাজের জন্য পয়া নন শুভশ্রী। ঘরে আসতেই হওয়া কাজ হাতছাড়া হয়ে গেল পরিচালকের। এই প্রসঙ্গেই উঠছে রাজের প্রথম স্ত্রী শতাব্দীর নাম। শতাব্দীকে বিয়ে করার পরই খুলেছিল রাজের বরাদ। ‘চিরদিনই তুমি যে আমার’, ‘চ্যালেঞ্জ’ একের পর এক কেরিয়ারের হিট ছবি দিয়েছিলেন তিনি।

তবে লোকের কথায় কিছু আসে যায় না পরিচালকের। আপাতত নতুন চিত্রনাট্য নিয়ে কাজ শুরু করেছেন তিনি।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

জীবে প্রেম কি আদৌ থাকছে? কথা বলবেন বন্যপ্রাণ বিশেষজ্ঞ অর্ক সরকার I।