নয়াদিল্লি: সারা পৃথিবী কাঁপছে করোনা আতঙ্কে। এরই মধ্যে এই মারণ ভাইরাসের সংক্রমণ নিয়ে সরাসরি চিনের দিকে অভিযোগের আঙুল তুলেছে বেশ কয়েকটি রাষ্ট্র। এর মধ্যে জল্পনা আরও জোরদার হল ‘হু’ এর টুইট ঘিরে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা তথা হু-র একটি টুইট ঘিরে জল্পনা উস্কে উঠেছে বিভিন্ন মহলে। হু এর একটি টুইটে দেখা যাচ্ছে, চিন ‘হু’ কে জানুয়ারি মাসে যে তথ্য দিয়েছিল, সেই অনুযায়ী এই মারণ ভাইরাস মানুষের থেকে মানুষের দেহে ছড়ায় না।

প্রকৃতপক্ষে ‘হু’ এর নিয়মানুযায়ী , রাষ্ট্র সঙ্ঘের সদস্য দেশগুলিতে যদি নতুন কোনও রোগের সংক্রমণ দেখা দেয় তবে তা ‘হু’কে জানাতে হয়। অনেকের অভিযোগ, এখানেই সত্যকে আড়াল করে গিয়েছে চিন। কারণ, চিন হু কে জানিয়েছিল এই রোগ মানব শরীর থেকে মানব শরীরে ছড়ায় না। কিন্তু ততদিনে চিনে কয়েক’শ মানুষের শরীরে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ কিন্তু ছড়িয়ে গিয়েছে। তাও এ ব্যাপারে সঠিক তথ্য রাষ্ট্র সংঘের দপ্তরের হাতে তুলে দেয়নি চিন।

তবে এই ভাইরাস নিয়ে প্রতি মুহুর্তের আপডেট হু-এর সঙ্গে শেয়ার করেছে বেজিং। ৭ জানুয়ারি তারা হু-কে জানায় যে এটি একটি নতুন ধরনের ভাইরাস। ১১ জানুয়ারি করোনাভাইরাসে চিনে প্রথম মৃত্যুর ঘটনা ঘটে।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রও চিনের বিরুদ্ধে তথ্য গোপনের অভিযোগ তুলেছে। তাঁদের অভিযোগ চিন ইচ্ছাকৃতভাবে করোনা নিয়ে তথ্যগোপন করেছে। অন্যদিকে বেজিং আবার করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রুখে দিয়ে সেই অভিজ্ঞতা অন্য রাষ্ট্রগুলির সঙ্গে শেয়ার করতে আগ্রহী বলে জানিয়েছে। এ বিষয়ে ভারতের সঙ্গে তাঁদের একপ্রস্থ কথাও হয়েছে বলে জানা গিয়েছে।