নয়াদিল্লি: ভারতীয় রেলে তৃতীয় বেসরকারি ট্রেন চালু হচ্ছে এই মাসেই৷ ইন্ডিয়ান রেলওয়ে ক্যাটারিং অ্যান্ড ট্যুরিজম কর্পোরেশন দুটি তেজস ট্রেন চালুর পর এবার তৃতীয় ট্রেনটিও চালাবে আইআরসিটিসি৷ এই নতুন ট্রেনটি চলবে ইন্দোর এবং বারাণসীর মধ্যে৷ নতুন এই ট্রেনটির নাম কাশী মহাকাল এক্সপ্রেস৷ পুরো ট্রেনটিএসি কোত দিয়ে তৈরি এবং চলবে সপ্তাহে তিনদিন৷

এটিই হচ্ছে প্রথম বেসরকারি ট্রেন যেটি একটি রাত্রীকালীন ট্রেন৷ বর্তমানে যে দুটি তেজস এক্সপ্রেস চলছে সেগুলি যেখান থেকে ছাড়ছে সেখানে ফিরে আসছে একইদিনে ৷ শিবরাত্রীর আগে দিন ২০ফেব্রুয়ারি এই ট্রেনটি চালু হচ্ছে ৷ আশা করা হচ্ছে ট্রেনটিতে আরামদায়ক আসন এবং পর্যাপ্ত এলইডি আলোর ব্যবস্থা, এবং যাত্রীদের নিরাপত্তার জন্য সিসিটিভি ক্যামেরা থাকছে ৷ এছাডা় বহু পয়েন্ট থাকবে মোবাইল চার্জ দেওয়ার জন্য ৷

রেলমন্ত্রী পীযূষ গোয়েল প্রথম ১২ জানুয়ারি ঘোষণা করেন, ইন্দোর -বারাণসী রুটে বেসরকারি ট্রেন চলবে ৷ তিনি বলেছিলেন, একটি বিশেষ ট্রেন চলবে মধ্য প্রদেশের উজ্জয়নী থেকে উত্তর প্রদেশের বারাণসীতে , যা বিখ্যাত কাশী বিশ্বনাথের মন্দির হিসেবে৷ এই ট্রেনটি চালাবে ইন্ডিয়ান রেলওয়ে ক্যাটারিং অ্যান্ড ট্যুরিজম কর্পোরেশন বলে তিনি জানান৷

গত কয়েক মাসে আইআরসিটিসি দুটি রুটে বেসরকারি ট্রেন চালানো শুরু করেছে সে দুটি হল- দিল্লি লখনউ এবং আহমেদাবাদ-মুম্বই৷ তবে পরিকাঠামো রক্ষণাবেক্ষণ, চলাচল এবং নিরাপত্তার দেখভাল করবে ভারতীয় রেল ৷ বেসরকারি সংস্থা যারা ট্রেন চালাবে রেক গুলি ইজারায় নেবে এবং যাত্রীদের খাদ্য আরাম বিনোদনের সাপেক্ষে তুলনায় আরও ভাল পরিষেবা দেবে ৷

আগে রেল বোর্ডের চেয়ারম্যান বিনোদকুমার যাদব জানিয়েছিলেন, ১৫০টি ট্রেন বেসরকারি সংস্থা চালাবে যা আপাতত পরিকল্পনায় রয়েছে ৷ এদিকে বেসরকারি সংস্থা দিয়ে রেল চালানো প্রস্তাবে সাড়া দিয়েছে দু ডজনের বেশি বিদেশি সংস্থা ৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.