নয়াদিল্লি: প্রতিনিয়ত রেলে আধুনিকীকরণের নানা পদক্ষেপ নেওয়া হচ্ছে। ভ্যাকুয়াম টয়লেট থেকে শুরু করে সাজানো স্টেশন, রেলযাত্রাকে আরামদায়ক করতে নেওয়া হচ্ছে সব ব্যবস্থাই। এবার এয়ারপোর্টের মত লাউঞ্জ তৈরি হবে স্টেশনগুলিতে। প্রাথমিকভাবে ১৯ টি স্টেশনে এই ধরনের অত্যাধুনিক ব্যবস্থা করার সিদ্ধান্ত নিবেছে আইআরসিটিসি। সেগুলো ব্যবহার করতে খরচও খুব বেশি নয় বলেই জানানো হয়েছে।

আইআরসিটিসি চেয়ারম্যান ও ম্যানেজিং ডিরেক্টর জানিয়েছেন, ”রেলযাত্রার পর যাত্রীদের ক্লান্তি কাটাতে এক্সিকিউটিভ লাউঞ্জ তৈরি করা হবে। পাশাপাশি, ট্রেনের জন্য অপেক্ষা করাও আর খুব একটা দুরূহ হবে না।” প্রাথমিকভাবে যেসব স্টেশনে এই সুবিধা দেওয়া হবে সেগুলি হল, জয়পুর, বিজয়ওয়াডা, আগ্রা, নয়াদিল্লি, কাঠগুদাম, পাটনা, শিয়ালদহ, হাওড়া, ভুবনেশ্বর, লুধিয়ানা, অমৃতসর, লখনউ, গোরখপুর। আগামী বছরেই এই লাউঞ্জগুলি চালু করা হবে। এক বছরের মধ্যে আরও এইরকম ৩০ টি স্টেশন তৈরি করা হবে।

আরও খবর পড়ুন:

১.ভারতীয় রেলকে গতি দিতে জাপানি বিনিয়োগ

২.দুর্ঘটনা এড়াতে ইসরোর সঙ্গে জোট বাঁধছে রেল

৩.কম খরচে যাত্রা করতে রেলের নয়া অ্যাপ

৪.প্রথমবার রেলে চাকরির অনলাইন পরীক্ষা

এয়ারপোর্ট লাউঞ্জের মতই সব সুবিধা পাওয়া যাবে এইসব স্টেশনে। থাকবে ওয়াশরুম, চেঞ্জিং রুম, ওয়াই-ফাই, ইন্টারনেট, লাইভ টিভি, মিউজিক চ্যানেল, বাফে সার্ভিস, খবরের কাগজ, লাগেজ রাখার র‍্যাক, ট্রেন সম্পর্কিত তথ্য জানার ব্যবস্থা সহ একগুচ্ছ সুবিধা। কোনও কিছু কিনতে পারবেন ক্রেডিট কিংবা ডেবিট কার্ডে। এর ফলে রেলযাত্রায় আগ্রহ বাড়বে ও যাত্রীসংখ্যা বাড়বে বলেই আশা করছে রেল কর্তৃপক্ষ।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.