শহিদদের বদলা নিয়ে আইএস ঘাঁটি লক্ষ্য করে শক্তিশালী মিসাইল ছুঁড়েছে তেহরান। পরপর ছোঁড়া দুটি মিসাইলের আঘাতে এখনও পর্যন্ত ৬৫ জন আইএস জঙ্গি খতম হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। খতম হওয়া জঙ্গিদের মধ্যে বেশ কয়েকজন আইএস কমান্ডার আছে বলে জানা গিয়েছে। তবে, আইএস জঙ্গিদের খতম হওয়ার সংখ্যা আরও বাড়বে বলে মনে করছে সেনা আধিকারিকরা।

বিপ্লবী গার্ড বাহিনী সিরিয়ায় একের পর এক আইএস ঘাঁটি লক্ষ্য করে মোট ছটি ক্ষেপনাস্ত্র নিক্ষেপ করেছে। প্রতিটি ক্ষেপনাস্ত্রই সঠিকভাবে লক্ষ্যভেদ করেছে। দুটি ক্ষেপনাস্ত্রের ক্ষয়ক্ষতি সম্পর্কে জানা গেলেও বাকি চারটি ক্ষেপনাস্ত্রের ক্ষয়ক্ষতি সম্পর্কে এখনও জানা যায় নি। ফলে, তা জানা গেলে আইএস জঙ্গিদের খতম হওয়ার সংখ্যা আরও বাড়বে বলে মনে করা হচ্ছে।

অন্যদিকে ইরানের বেশ কয়েকটি সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, দেইর আয-যোরের আলমায়াদিন শহরে আইএস কমান্ডারদের একটি ঘাঁটিতে বিপ্লবী গার্ড বাহিনীর একটি ক্ষেপনাস্ত্র আঘাত হেনেছে। ওই ক্ষেপনাস্ত্র হামলায় পঞ্চাশেরও বেশি আইএস জঙ্গির খতম হওয়ার খবর পাওয়া গিয়েছে। যদিও এখনও পর্যন্ত এই বিষয়ে সরকারের তরফে কোনও বিবৃতি দেওয়া হয়নি।  আর এই সংখ্যা সঠিক হলে শতাধিক আইএস জঙ্গির মৃত্যু হবে বলে জানা গিয়েছে।

প্রসঙ্গত, ইরাকের আকাশ পেরিয়ে ৬৫০ কিলোমিটার দূরের ওইসব ঘাঁটিতে রবিবার রাতে ইসলামি বিপ্লবী গার্ড বাহিনীর ক্ষেপনাস্ত্রগুলো সঠিক লক্ষ্যে আঘাত হানতে সক্ষম হয়েছে। গত ৭ জুন তেহরানে আইএস হামলায় ১৮ জন শহীদ হয়। ওই হামলার প্রতিশোধ নিতেই বিপ্লবী গার্ড বাহিনী আইএসের ঘাঁটিতে হামলা চালায়। এই হামলার ঘটনায় বিপ্লবী গার্ড বাহিনী বলেছিল, শহীদদের পবিত্র রক্তের যথাযথ বদলা নেওয়া হবে।