তেহরান: আজাদি স্টেডিয়ামে আক্ষরিক অর্থেই আজাদি পেল ইরানের ফুটবল৷ বৃহস্পতিবার ঐতিহাসিক ম্যাচে কম্বোডিয়াকে ১৪-০ গোলে উড়িয়ে দেয় ইরান৷ গত চার দশকে প্রথমবার দেশের এমন দুরন্ত জয়ের সাক্ষী থাকে ইরানি মহিলারা৷ প্রথমবার স্টেডিয়ামে উপস্থিত থেকে জাতীয় দলকে উৎসাহিত করে তারা৷

আরও পড়ুন: নজির গড়ে স্টেডিয়ামে বসেই ফুটবল দেখবেন ইরানি মহিলারা

ইরানে ছেলেদের ফুটবল ম্যাচ চলাকালীন মহিলাদের স্টেডিয়ামে ঢোকা নিষিদ্ধ ছিল৷ অবশেষে ফিফার হস্তক্ষেপে ছেলেদের ম্যাচ দেখতে গ্যালারিতে উপস্থিত থাকার স্বাধীনতা পায় ইরানের মেয়েরা৷ প্রথমবার মাঠে উপস্থিত হয়েই জাতীয় দলের এমন অসাধারণ জয় দেখল সাড়ে তিন হাজার মহিলা সমর্থক৷ যদিও ছেলেদের সঙ্গে একসঙ্গে বসে নয়৷ মেয়েদের জন্য নির্দিষ্ট গ্যালারির একাংশে থেকেই জাতীয় দলকে উৎসাহিত করে ইরানি মেয়েরা৷

আরও পড়ুন: বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপের সেমিতে মেরি কম, ফের নিশ্চিত করলেন পদক

বিশ্বকাপের যোগ্যতা অর্জন পর্বের ম্যাচের দুই অর্ধে ৭টি করে গোল করে ইরান৷ কম্বোডিয়ার ফুটবল ইতিহাসে এটিই তাদের বৃহত্তম ব্যবধানে হার৷ স্বাভাবিকভাবেই লজ্জার অধ্যায় রচিত হয় কম্বোডিয়া ফুটবলে৷ ইরানের হয়ে ম্যাচে ৪টি গোল করেন করিম আনসারিফর্দ৷ এছাড়া হ্যাটট্রিক করেন সর্দার আজমউন৷ ২টি করে গোল করেন মেহদি তারেমি ও মহম্মদ মোহেবি৷ ১টি করে গোল করেন আহমেদ নৌরল্লাহি, হোসেন কানানিজদেগান ও মেহেরদাদ মহম্মদি৷

আরও পড়ুন: দক্ষিণী অভিনেত্রীর সঙ্গে বিয়ের পিঁড়িতে টিম ইন্ডিয়ার ফ্ল্যামবয়েন্ট ক্রিকেটার

ম্যাচ শুরুর ৫ মিনিটের মাথায় আহমেদ নৌরল্লাহি ইরানের হয়ে প্রথম গোল করেন৷ পরে করিম আনসারিফর্দ ম্যাচের ৪০, ৪৮, ৬০ ও ৮৮ মিনিটে চারবার কম্বোডিয়ার জালে বল জড়ান৷ সর্দার ১১, ৩৫ ও ৪৪ মিনিটে তিনটি গোল করেন৷ মেহদি তারেমি ২২ ও ৫৪ মিনিটে দু’টি গোল করেন৷ মহম্মদ মোহেবি ৬৫ ও ৬৭ মিনিটে পর পর দু’বার প্রতিপক্ষের তেকাঠিতে বল ঠেলে দেন৷ হোসেন কানানিজদেগান ম্যাচের ১৮ মিনিটে এবং মেহেরদাদ মহম্মদি ম্যাচের ৮৫ মিনিটে গোল করেন৷