মুম্বই: আইপিএল ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলি টুর্নামেন্টের ১৩ তম আসরের আগে পরিবারের সদস্যদের সংযুক্ত আরব আমিরশাহীতে ভ্রমণের বিষয়ে ভারতের ক্রিকেট বোর্ড অফ কন্ট্রোলের কাছে লিখিত ব্যাখ্যা চাইল।

চলতি বছর মার্চ-মে মাসে আইপিএল হওয়ার কথা থাকলেও করোনভাইরাস মহামারীজনিত কারণে তা পিছিয়ে দেওয়া হয়েছিল। শেষ পর্যন্ত চলতি বছরে অক্টোবরে টি-২০ বিশ্বকাপ পিছিয়ে দেওয়ায় সংযুক্ত আরব আমিরশাহীতে আইপিএল ২০২০ করার সিদ্ধান্ত নেয় বিসিসিআই৷ টুর্নামেন্ট হবে ১৯ সেপ্টেম্বর থেকে ১০ নভেম্বর পর্যন্ত৷

একাধিক ফ্র্যাঞ্চাইজির সূত্র মারফত এএনআই জানিয়েছে, ‘কয়েকটি ফ্র্যাঞ্চাইজিদের শীর্ষস্থানীয় হোটেলগুলি (বেশিরভাগ দুবাই) শর্টলিস্ট করা হয়েছে৷ ভ্রমণের জন্য চার্টেড বিমানগুলি বুকিং করা হচ্ছে৷ সম্ভবত আমরা ২০ অগস্টের পরে সংযুক্ত আরব আমিরশাহীতে ভ্রমণ করব৷’

আরও বলা হয়েছে, ‘খেলোয়াড় এবং সহায়তা কর্মীদের টেন্টিটেটিভ পরিকল্পনা এবং তারিখ সম্পর্কে অবহিত করা হয়েছে। তবে আমরা পরিবারের সদস্যদের ভ্রমণের বিষয়ে স্পষ্টতা চাই৷ কারণ কয়েকটি ফ্র্যাঞ্চাইজি নিরাপদ হবে না বলেই তারা উদ্বিগ্ন৷ তারা বিসিসিআই-এর কাছে এর লিখিত ব্যাখ্যা চাই। আমরা দুবাইয়ে থাকতে চাইছি৷ এবং ২০ অগস্টের পর উড়ে যাব৷’

এর আগে রবিবার আইপিএল গভর্নিং কাউন্সিলের বৈঠকে আইপিএল ২০২০ মরশুমে নিরাপদ ও সফল আয়োজনের জন্য বায়ো-সুরক্ষিত পরিবেশ কার্যকর করতে এবং সরবরাহের জন্য এজেন্সিগুলি-সহ বিস্তৃত স্ট্যান্ডার্ড অপারেটিং পদ্ধতি (এসওপি) নিয়ে আলোচনা করা হয়েছিল। যা পরে ফ্র্যাঞ্চাইগুলিকেও পাঠিয়ে দেওয়া হয়৷

আইপিএলের ত্রয়োদশ সংস্করণ হবে সংযুক্ত আরব আমিরশারীর তিনটি শহরে৷ এ গুলি হল দুবাই, আবুধাবি এবং শারজ৷ ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলির অন্য উদ্বেগ হল, কীভাবে একটি bio-bubble মধ্যে ৫৩ দিনের জন্য পরিবারগুলি রাখা সম্ভব হবে৷ তাদের পক্ষে এটি কতটা নিরাপদ থাকবে, তা নিয়েও প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে৷

শুধু তাই নয়, পরিবারের কোনও সদস্য bio-bubble প্রোটোকলটি ভেঙে ফেললে, খেলোয়াড়ের কী কী প্রতিক্রিয়ার মুখোমুখি হতে পারে, সে সম্পর্কেও ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলি স্পষ্টভাবে জানতে চেয়েছে। সুত্রের খবর, ‘বিসিসিআই আমাদের পরিবারের ভ্রমণের বিষয়টি ফ্র্যাঞ্চাইজির উপর ছেড়ে দিয়েছে৷ তবে এসওপি না-বুঝে আমরা এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে পারি না। স্পষ্টতই এই দিকটি সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ এবং বিসিসিআই-কে এটা লিখিত আকারে দেওয়া উচিত৷’ সম্ভবত আগামী দু’দিনের মধ্যে এ নিয়ে বৈঠকে বসতে চলেছে ফ্র্যাঞ্জাইজিগুলি৷

পপ্রশ্ন অনেক: নবম পর্ব

Tree-bute: আমফানের তাণ্ডবের পর কলকাতা শহরে শতাধিক গাছ বাঁচাল যারা