মুম্বই: চতুর্থদশ আইপিএলের নিলামের দিন ঘোষণা করে দিল বিসিসিআই৷ ২০২১ আইপিএলে ক্রিকেটার কেনাবেচার হবে ১৮ ফেব্রুয়ারি৷ আইপিএল নিলামের আসর বসবে চেন্নাইয়ে৷

বুধবার আইপিএল গভর্নিং কাউন্সিলের তরফে এমনটা জানানো হয়েছে৷ গত আইপিএলে করোনা ভাইরাসের কারণে দেশে অনুষ্ঠিত হয়নি৷ তবে সেপ্টেম্বর-নভম্বেরে সংযুক্ত আরব আমিরশাহীতে বায়ো-বাবলের মধ্যে অনুষ্ঠিতে হয়েছে আইপিএলের ত্রয়োদশ সংস্করণ৷ কিন্ত চতুর্দশ আইপিএলের আসর কোথায় বসবে, তা এখনও স্থির করতে পারেনি বিসিসিআই৷

তবে ২০২১ আইপিএল দেশের মাটিতে করার সমস্ত চেষ্টা করবে বিসিসিআই৷ টুর্নামেন্ট হতে পারে এপ্রিল-মে উইন্ডোতে৷ চতুর্দশ আইপিএলের জন্য ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলোর কাছে প্লেয়ার রিটেইন ও রিলিজ করার শেষ দিন ছিল গত বুধবার৷ নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যেই ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলি তাদের রিটেন প্লেয়ারের তালিকা বোর্ডের কাছে জমা দিয়েছে৷

২০২০ আইপিএলের মাঝপথে নেতৃত্ব থেকে তাঁর সরে দাঁড়ানো কেকেআর ক্যাপ্টেন দীনেশ কার্তিকে রিটেইন করে কলকাতা ফ্র্যাঞ্চাইজি৷ গত বুধবার ছিল ২০২১ আইপিএলে জন্য রিটেইন প্লেয়ারদের তালিকা জমা দেওয়ার শেষদিন। বাকি দলগুলোর মত পার্পল ব্রিগেডও এদিনই তাদের রিটেইন প্লেয়ারদের নাম ঘোষণা করে। কলকাতা নাইট রাইডার্স ২০২১ আইপিএলের জন্য রিটেইন করে তাদের প্রাক্তন অধিনায়ক দীনেশ কার্তিককে। ২০২০ কয়েকটি ক্ষেত্রে দীনেশের চওড়া ব্যাট দলের কাজে আসায় প্রাক্তন অধিনায়ককে সহজে ছেঁটে ফেলতে পারেনি নাইটশিবির।

কার্তিকের পাশাপাশি চর্চা থাকা কুলদীপ যাদবকে নিয়েও। ২০২০ আইপিএলে প্রথম একাদশে জায়গা হারিয়েছিলেন কুলদীপ। মনে করা হচ্ছিল কোপ পড়তে পারে তাঁর উপরেও। কিন্তু ‘চায়নাম্যান’ বোলারকেও রিটেইন করেছে কেকেআর। তবে ছেঁটে ফেলা হয়েছে ৫ জন ক্যাপড প্লেয়ারকে।

কেকেআর-এর প্রাক্তন ক্যাপ্টেন কার্তিক তাঁর পুরনো ফ্র্যাঞ্চাইজিতে জায়গা ধরে রাখতে পারলেও স্টিভ স্মিথকে ছেঁটে ফেলে রাজস্থান রয়্যালস টিম ম্যানেজমেন্ট৷ একই সঙ্গে নতুন অধিনায়কের নামও ঘোষনা করে দেয় রয়্যালস ফ্র্যাঞ্চাইজি৷ চতুর্দশ আইপিএলে রাজস্থান রয়্যালসকে নেতৃত্বে দেবেন সঞ্জু স্যামসন৷ আইপিএলের চতুর্দশ সংস্করণের জন্য ১৭ জন প্লেয়ার ধরে রেখেছে রাজস্থান৷ আর ৮ জন ক্রিকেটারকে রিলিজ করে দিয়েছে তারা৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।