সবে মাত্র রাজনীতির ময়দানে নেমেছেন৷ কিন্তু ইতিমধ্যেই প্রচারে সাড়া ফেলে বুঝিয়ে দিয়েছেন কোনও অংশেই কম নন তিনি৷ হাতে গোনা মাত্র ২০ দিন৷ বিষ্ণুপুরে মোদীর হাওয়া যে আনতেই হবে৷ তিনি আর কেউ নন বিষ্ণুপুর লোকসভা কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী সৌমিত্র খাঁ-এর স্ত্রী সুজাতা খাঁ৷

বিষ্ণুপুর লোকসভা কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী সৌমিত্র খাঁ৷ জেলায় ঢুকতে পারছেন না৷ তাঁর অনুপস্থিতিতে স্ত্রী সুজাতা খাঁ প্রচারের ময়দানে নেমেছেন৷

কলকাতা ২৪x৭-এর এক সাক্ষাৎকারে প্রতিনিধি দীপিকা সাহাকে তিনি জানালেন, আমি প্রচারে অভূতপূর্ব সাড়া পাচ্ছি৷ সত্যি কথা বলতে আমার নিজেরই বিশ্বাস হচ্ছে না ২০ দিনের রাজনৈতিক জীবন নাকি ২০ বছরের৷ মানুষের কাছ থেকে যে সমর্থন পাচ্ছি তাতে আমার মনে হচ্ছে আমি অল্প সময়ে জননেত্রী হয়ে উঠতে পেরেছি৷

প্রার্থী নেই, মানুষের কাছে বার্তা পৌঁছে দিতে কী স্ট্র্যাটেজি আপনার?

সৌমিত্র খাঁ কোনও অচেনা প্রার্থী নন৷ তাঁর যথেষ্ট পরিচিতি রয়েছে৷ সত্যি কথা বলতে, তিনি আগে যে দলে ছিলেন সেই দলের নামটা মুখে আনতে আমার লজ্জা করছে৷ ঘৃণা বোধ হচ্ছে৷ কারণ শেষ পঞ্চায়েত ভোটে বাংলায় যে সন্ত্রাস হয়েছে৷ তারই প্রতিবাদে সৌমিত্র খাঁ বাধ্য হয়ে ভারতীয় জনতা পার্টিতে যোগদান করেছেন৷

দল বদল হয়েছে, মানুষকে বোঝাতে অসুবিধা হচ্ছে না তো?

এখন মানুষ এতো সচেতন যে কিছু বলার আগেই সব বুঝে যাচ্ছে৷ আর ধরুন যারা একটু খবরের দিক থেকে পিছিয়ে থাকে তাঁদের কাছে গিয়ে বলছি সৌমিত্র খাঁ যতদিন তৃণমূলে ছিল তখন তো তিনি কোনও কেস খাননি৷ উনি বালি মফিয়া বা কয়লা চোর ছিলেন না৷ বা অন্য কোনো কেসের আসামী ছিলেন না৷ যদি তৃণমূল কংগ্রেস সততা দুর্নীতির বিরুদ্ধে দল হয়ে থাকে তাহলে এতদিন তাঁকে কোনও কেস দেয়নি কেন? তার মানে কি ভারতীয় জনতা পার্টিতে যোগদানের পর কি ও চোর হয়ে গেল? তখন মানুষ বলছে দিদি চিন্তা করবেন না আমরা সবই বুঝি৷ এই দল ও সরকারকে আমরা আর একদম চাই না৷ শুধু একটা ব্যবস্থা করুন প্রতিটি বুথে যেন সেন্ট্রাল বাহিনী থাকে৷ তাহলেই আমরা এর সঠিক জবাব দিয়ে দেব৷

সৌমিত্র খাঁ দলবদলের পর এই প্রচারে কি মানুষ তৃণমূল বলে ভুল করছে?

সৌমিত্র খাঁকে সবাই চেনে৷ কারণ আমি নয় দশটা এলাকা ঘুরেছি৷ সেখানে গেলেই মানুষ বলছে দিদি জানেন তো সৌমিত্র দা না আমাদের এই লাইটটা করে দিয়েছে৷ একজন চাওয়ালা তো বলেই উঠল, জানেন দিদি সৌমিত্র দা তো আমার দোকানে এসে চা খেয়েছে৷ আমি তো বালিখাদানে কাজ করি৷ তাকে আমি প্রশ্ন করলাম সত্যি সৌমিত্র কি বালি মাফিয়া? তিনি আমায় বললেন, দিদি সৌমিত্র দা তো প্রথম ওই দুর্নীতির বিরুদ্ধে আঙুলটা তুলেছিলেন৷ বলেছিলেন গরিব মানুষের পেটে লাথ মেরো না৷ এত টাকা দিয়ে যদি বালি কিনতে হয় তাহলে গরিব মানুষ টাকাটা পাবে কোথায়৷ এতোগুলো কথা সৌমিত্রদা বলেছিলেন বলে তাঁর আজ এই অবস্থা৷ সৌমিত্রদা যদি অভিষেক দার সঙ্গে হাত মেলাত তাহলে তার এই অবস্থা হত না৷ আমি তাঁদের উদ্দেশ্যে একটাই কথা বলছি সৌমিত্র দা কিন্তু ঘাস ফুলে নয়, পদ্ম ফুলে৷ তারা বলছে জানি দিদি৷ সৌমিত্র দা দল বদলেছে বলে শুধরে গিয়েছে৷ ভোট দিলে আমরা ওই দলটাকে দিতাম না, সৌমিত্র দাকে দিতাম কিন্তু এবার বিজেপিকে খুশি মনে ভোট দেব৷

প্রচারে করতে গিয়ে দলবদলের প্রভাব টের পাচ্ছেন? লড়াইটা কি একটু হলেও শক্ত মনে হচ্ছে?

প্রথম যখন প্রচারে নামি, সত্যি তখন সেটাই মনে হচ্ছিল৷ আমি একজন অনভিজ্ঞ মানুষ৷ যতই শিক্ষাগত যোগ্যতা থাক বা গ্ল্যামার থাক, উপস্থিত বুদ্ধি থাক আমি কিন্তু রাজনীতির ময়দানে একদম নতুন৷ আমার স্বামী রাজনীতিতে একজন পরিপক্ক মানুষ, ভালো সংগঠক, প্রতিটি এলাকার অলিগলি চেনে৷ কিন্তু আমি তো ওর তুলনায় নবীন৷ প্রথম যেদিন প্রচারে নেমেছিলাম সত্যি সেদিন একটু হলেও ভয় পেয়েছিলাম৷ ভেবেছিলাম আমি মানুষের মন জয় করতে পারব তো? মানুষ আমাকে মেনে নেবে তো? কিন্তু বিশ্বাস করুন আজ ২০ দিন কেটে গিয়েছে আমি মানুষের কাছে জননেত্রী হয়ে উঠছি আস্তে আস্তে৷ সাধারণ মানুষ বলছে, দিদি দাদা না থাকলেও ক্ষতি নেই তুমি এসো৷ বাঁকুড়ার সাতটি বিধানসভায় আমাকে নিয়ে রীতিমতো কাড়াকাড়ি পড়ে গিয়েছে৷ এর থেকে বড় সাফল্য জীবনে আর আমি পাব না৷

প্রার্থীর প্রচার ছাড়াই ভোট হবে৷ কতটা আশঙ্কা আপনার? কতটাই বা আশাবাদী?

আমি নিশ্চিত মানুষ এবার সৌমিত্র খাঁকে জিতিয়ে সংসদে পাঠাবেন৷ কারণ মানুষ পাঁচ বছরে সৌমিত্র খাঁকে প্রতিটি এলাকায় কিছু না কিছু কাজ করতে দেখেছে৷ ওর ব্যবহার এতোই সুমধুর যে মানুষ সেটার জন্য ওকে ভোট দেবে৷ যাদি মানুষ সৌমিত্র খাঁ-কে নাও চেনে তাহলেও মানুষ এবার মোদীজী ও পদ্মফুলে ভোট দেবে৷

সৌমিত্র বাবুর কোন বার্তা ভোটারদের কাছে পৌঁছে দিচ্ছেন?

সৌমিত্র খাঁ-এর হয়ে ভোটারদের কাছে আমি একটাই কথা বলছি, যে গণতন্ত্র হত্যাকারী সরকার লোকসভা ভোটের এক প্রার্থীকে আইনের বেড়াজালে ফাঁসিয়ে তাঁর নিজের এলাকায় ঢুকতে দিচ্ছে না৷ যদি একজন সাংসদ ও তার পরিবারের নিরাপত্তা না থাকে তাহলে এই দলটা কি আপনাদের নিরাপত্তা দিতে পারবে? যদি এই দলটিকে আপনারা যদি আবার ফিরিয়ে আনেন তাহলে কিন্তু আপনাদের মা বোনেরা ঘর থেকে আর বের হতে পারবে না৷ কারণ দেশটা তখন পাকিস্তান হয়ে যবে৷

বিরোধী প্রার্থী নিয়ে কি মনোভাব?

চাইনিজ মালের সম্বন্ধে আর কি বলব৷ যতটাই কথা বলি ততটাই হাস্যকর৷ কারণ তৃণমূল কংগ্রেস সব রকম নোংরামি করেও যখন পেরে উঠতে পারছে না৷ সৌমিত্র খাঁ-এর স্ত্রী সুজাতা খাঁ তাদের বুকে এতটাই ভয় ধরিয়ে দিয়েছে তাই সে তার স্ত্রীকে প্রচারে নামাতে বাধ্য হয়েছে৷ যার সঙ্গে মানুষ আছে তার সঙ্গে শ্যামল সাঁতরার স্ত্রী কেন গোটা তৃণমূল পড়ে গেলেও আমাকে টক্কর দিতে পারবে না৷ আমার একটাই জোর আমার সঙ্গে জনগণ আছে৷ ২০ দিন রাজনীতিতে তে এতো সহজেই আমি রোল মডেল হয়ে গিয়েছি সেটা ভাবতে খুব ভালো লাগছে৷

আগামীদিনে পাকাপাকিভাবে কি রাজনীতিতে থাকার ইচ্ছে আছে?

দাদাকে পাইনি বলে তোমাকে বোনাস পেলাম৷ আর কিন্তু তোমাকে ছাড়ব না৷ আর মানুষের পাশ থেকে দূরে সরে থাকার কোনও সদচ্ছিয়াই নেই৷ যা ভালোবাসা পেয়েছি সত্যি তা কল্পনাতীত৷ আগামিদিনে সক্রিয়ভাবে রাজনীতি করব কি না সেটা পরের কথা কিন্তু মানুষের সঙ্গে থাকব৷ পাশে থাকব৷