ঢাকা: কেবল ও ইন্টারনেটে ব্যাপক বিভ্রাট। প্রত্যেকদিন তিন ঘণ্টা করে বন্ধ রাখা হবে। কেবল লাইন নিয়ে একটি বিভ্রাট হওয়াতেই এই সমস্যা।

আগাম কোনও খবর বা সময়ও দেওয়া হয়নি বলে অভিযোগ। কেবল কাটার প্রতিবাদে রবিবার থেকে প্রতিদিন তিন ঘণ্টা করে বন্ধ ইন্টারনেট ও কেবল টিভি পরিষেবা বন্ধ রাখার ঘোষণা দিয়েছে প্রতিষ্ঠানগুলো।

কেবল কাটা বন্ধ না করা পর্যন্ত প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত তিন ঘণ্টা তাদের সেবা বন্ধ রাখবে বলে জানিয়েছে ইন্টারনেট ও কেবল টিভি সংযোগ প্রতিষ্ঠানগুলো। স্বাভাবিকভাবেই এতে সমস্যায় পড়বেন বাংলাদেশের বহু মানুষ। বিশেষ করে যারা করোনার কারণে অনলাইন ক্লাস, পরীক্ষা, অফিস, ভার্চুয়াল সভা, কেনাকাটাসহ উচ্চ গতির ইন্টারনেটের ওপর নির্ভরশীল, তাদের সমস্যা আরও বেশি।

জানা গিয়েছে, রাজধানীর ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের (ডিএসসিসি) তার সরানোর কাজ শুরু করেছে। এতে কাটা পড়ছে ইন্টারনেট ও কেবল টিভি সংযোগদাতা প্রতিষ্ঠানগুলোর তার।

এই অবস্থায় সোমবার জাতীয় প্রেসক্লাবে এক যৌথ সংবাদ সম্মেলনে ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডার অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ ও কেবল অপারেটর্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ নেতৃবৃন্দ পরিষেবা বন্ধ করে দেওয়ার হুঁশিয়ারি দিয়েছে।

সাংবাদিক বৈঠকে বলা হয়, বাড়ি, অফিস ও ব্যাংকসহ সব পর্যায়ে ইন্টারনেট ডেটা কানেক্টিভিটি এবং কেবল টিভি বন্ধ রাখার প্রতীকী কর্মসূচি গ্রহণ করেছে আইএসপিএবি ও কোয়াব। বিকল্প ব্যবস্থা না করে বিনা নোটিশে বৈদ্যুতিক খুঁটি থেকে ইন্টারনেট ও ক্যাবল টিভি নেটওয়ার্ক অপসারণের হঠকারী সিদ্ধান্তের কারণে গত দুই মাসে রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় প্রায় ২০ কোটি টাকার কেবল সংযোগ দিতে হয়েছে।

আইএসপিএবি সভাপতি এম এ হাকিম সংবাদ সম্মেলনে বলেন, বিকল্প ব্যবস্থা আমাদেরকে না করে দেওয়া পর্যন্ত অনুরোধ করব তার অপসারণের কাজটা থামিয়ে রাখার জন্য। আগামী ১৭ অক্টোবরের মধ্যে এই সমস্যার সমাধান না করা হলে আগামী ১৮ অক্টোবর রোববার থেকে প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত সারাদেশে সব ইন্টারনেট ডেটা কানেক্টিভিটি ও কেবল টিভির সেবা প্রতীকীভাবে বন্ধ রাখা হবে।

সপ্তম পর্বের দশভূজা লুভা নাহিদ চৌধুরী।