মিলান: শনিবার ভেরোনার কাছে হেরে ইন্টারকে লিগ শীর্ষে যাওয়ার সুযোগটা করে দিয়েছিল জুভেন্তাস। ইব্রাহিমোভিচদের বিরুদ্ধে ডার্বি জিতে শীর্ষে যাওয়ার সুযোগটা হাতছাড়া করলেন না লুকাকুরা। দু’গোলে পিছিয়ে পড়েও রুদ্ধশ্বাস কামব্যাক। ৪-২ গোলে এসি মিলানকে হারিয়ে সিরি-‘এ’তে এখন ফার্স্ট বয় ইন্টার মিলান।

মিলান ডার্বিতে এদিন প্রথমার্ধ জুড়ে শুধুই এসি মিলান। জানুয়ারিতে পুরনো ক্লাবে ফেরার পর এদিন ডার্বি লেখা হয়ে থাকতেই পারত ইব্রার নামে। স্কোরশিটে নাম তোলার পাশাপাশি আন্তে রেবিচকে দিয়ে প্রথমার্ধে গোল করালেন সুইডিশ কিংবদন্তি। কিন্তু প্রত্যাবর্তনের পর পুরনো ক্লাবে তাঁর অপরাজিত থাকার রেকর্ড ক্ষুণ্ণ হল দ্বিতীয়ার্ধে ইন্টারের দাপুটে ফুটবলে।

দু’গোলে পিছিয়ে পড়ে দ্বিতীয়ার্ধের শুরু থেকেই তেড়েফুঁড়ে আক্রমণে যায় অ্যান্তোনিও কোন্তের ছেলেরা। ফলও মিলে যায় খুব শীঘ্রই। ৫১ মিনিটে ব্রোজোভিচের দূরপাল্লার ভলিতে ব্যবধান কমায় ইন্টার। দু’মিনিট বাদে ভেসিনোর গোলটি ইন্টারের দুরন্ত বোঝাপড়ার ফসল। লুকাকুর পা হয়ে অ্যালেক্সিস স্যাঞ্চেজের পাস থেকে বল তিনকাঠিতে রাখেন ভেসিনো। ইন্টারের আক্রমণে বিপক্ষ রক্ষণে তখন ত্রাহি-ত্রাহি রব। প্রতি-আক্রমণে ব্যবধান বাড়িয়ে নেওয়ার তাগিদে খামতি ছিল না এসি মিলানেরও। উপভোগ্য ম্যাচ মোড় নেয় ৭০ মিনিটে ম্যাচে ইন্টার প্রথমবার এগিয়ে যেতেই।

আরও পড়ুন: রিয়ালের জয়ে মোরিনহোকে টপকালেন জিদান

ম্যাচে প্রথমবার এগিয়ে যেতে সেটপিসকে হাতিয়ার করে ১৮ বারের লিগ জয়ীরা। ক্যানদ্রেভার কর্নার থেকে ফ্লাইং হেডারে ব্যবধান ৩-২ করেন স্টেফান ডি ভ্রিচ। পরিবর্ত ক্রিশ্চিয়ান এরিকসেনের ৩৫ গজ থেকে নেওয়া দুর্ধর্ষ ফ্রি-কিক ক্রসবারে প্রতিহত না হলে তখনই ব্যবধান বাড়িয়ে নিতে পারত ইন্টার। তাই চতুর্থ পেতে সংযুক্তি সময় অবধি অপেক্ষা করতে হল লুকাকুদের।

আরও পড়ুন: দুরন্ত শতরানে টেস্টের প্রস্তুতি সেরে রাখলেন কোহলির ডেপুটি

ভিক্টর মোসেসের ক্রস থেকে নিখুঁত হেডে এসি মিলানের কফিনে শেষ পেরেকটি পুঁতে দেন বেলজিয়ান স্ট্রাইকার। ডার্বি জিতে ২৩ ম্যাচে জুভেন্তাসের সমসংখ্যক পয়েন্টে ইন্টার। তবে গোলপার্থক্যে রোনাল্ডোদের টপকে গেল তারা।