ডাবলিন: সর্বসম্মতিক্রমে বদলানো হল আইসিসির কোড অফ কন্ডাক্ট৷ আচরণবিধি ভঙ্গে শাস্তি আরও কঠোর করার সিদ্ধান্ত নিল ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট কাউন্সিল৷ বিশেষ করে বল বিকৃতির অপরাধে দোষীকে আগের থেকে ছ’গুন বেশি শাস্তি দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হল আইসিসি’র বার্ষিক সম্মেলনে৷

এতদিন বল বিকৃতি আইসিসির ‘লেভেল-টু’ পর্যায়ের অপরাধ হিসাবে বিবেচিত হত৷ যার শাস্তি ছিল একটি টেস্ট বা দু’টি একদিনের ম্যাচে নির্বাসন৷ এবার থেকে বল বিকৃতিকে লেভেল-থ্রি পর্যায়ের অপরাধ হিসাবে বিবেচনা করা হবে৷ যার নূন্যতম শাস্তি হবে ৬টি টেস্ট বা ১২টি ওয়ান ডে থেকে নির্বাসন৷

ডাবলিনে আইসিসির বার্ষিক সম্মেলনি অন্যতম আলোচ্য বিষয় ছিল আচরণ বিধি৷ এক্সিকিউটিভ কমিটি ও ক্রিটেক কমিটি যৌথভাবে সওয়াল করে কোড অফ কন্ডাক্ট বদলে বিশেষ বিশেষ ক্ষেত্রে শাস্তি আরও কঠোর করার পক্ষে৷ আইসিসি বোর্ড যা সর্বসম্মতভাবে মেনে নেয়৷ যার ফলে বল বিকৃতির মতো অপরাধে ছ’গুন বাড়ানো হয় শাস্তি৷ লেভেল-থ্রি’র ক্ষেত্রে সাসপেনশন পয়েন্ট ৮ থেকে বাড়িয়ে ১২ করা হয় এবং এক্ষেত্রে সব থেকে কম ৬টি টেস্ট বা ১২টি একদিনের ম্যাচে নির্বাসনের দাওয়াই নির্ধারণ করা হয়৷

অতীতে বল বিকৃতি নিয়ে বিতর্ক কম হয়নি৷ বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই তাৎক্ষণিক ভাবনা চিন্তা থেকে এমন অপরাধ করতে দেখা গিয়েছে সংশ্লিষ্ট ক্রিকেটারদের৷ তবে কেপ টাউনে অস্ট্রেলিয়া দলের পরিকল্পিত বল বিকৃতির ঘটনা সামনে আসার পর থেকেই নড়ে চড়ে বসে আইসিসি৷ পরে শ্রীলঙ্কা অধিনায়ক দীনেশ চাঁদিমলকেও বল বিকৃতিতে জড়িয়ে নির্বাসিত হতে হয়৷

ক্রিকেটকে কলঙ্কমুক্ত করতেই এবং অপরাধ প্রবণতা কমাতে আইসিসির এমন কঠোর শাস্তিবিধানের নিদান৷ এমন বড়সড় শাস্তির ভয়ে ক্রিকেটে বল বিকৃতির মতো অপরাধ কমে কি না, সেটাই এখন দেখার৷

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

Tree-bute: রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও