স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আশ্বাস দিয়েছিলেন ভাটপাড়ার শান্তি ফেরাতে উদ্যোগী হবে সরকার। মুখ্যমন্ত্রীর আশ্বাস কতটা কার্যকর হয়েছে, কতটা হয়নি– সেই রিপোর্ট দিতে সোমবার নবান্নে গেলেন বিশিষ্টজনেদের একাংশ। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন অপর্ণা সেন, পরমব্রত চট্টোপাধ্যায়, বোলান গঙ্গোপাধ্যায় প্রমুখ।

ভাটপাড়া সন্ত্রাসের কালো ধোঁয়ায় ঢেকে গিয়েছে। শান্ত, শিক্ষা-সংস্কৃতি পরিবেষ্টিত ছোট এই জায়গাটি সম্প্রতি সংবাদের শিরোনামে উঠে এসেছে অশান্তির জন্য। রাজনৈতিক হানাহানি, মানুষ খুন, বোমাবাজি জায়গাটিকে অশান্ত করে রেখেছে। এমনই অস্থির পরিস্থিতিতে শান্তি ফেরানোর উদ্দেশ্যে ভাটপাড়ায় গিয়েছিলেন কৌশিক সেন, চন্দন সেন, অপর্ণা সেনেরা।

সেখানকার সাধারণ মানুষের সঙ্গে কথা বলে তাঁদের যন্ত্রণার কথা শুনে আসেন তাঁরা। এর আগে পয়লা জুলাই তাঁদের প্রতিনিধি হয়ে মখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে নবান্নে দেখা করেন কৌশিক সেন। বিদ্বজনেরা মনে করেন, ভাটপাড়ার সাধারণ মানুষের ক্ষোভ ধর্মের বিরুদ্ধে নয়। সেখানকার মানুষেরা এই অশান্তির জন্য রাজনৈতিক দলগুলোকেই দায়ি করেছেন।

ভাতপাড়ার শান্তি ফেরানোর তাগিদে বিদ্বজনেদের পক্ষ থেকে মুখ্যমন্ত্রীকে একটি চিঠিও দেওয়া হয় সেই সময়। ওই চিঠিতে শঙ্খ ঘোষ, সৌমিত্র চট্টোপাধ্যায়, রুদ্রপ্রসাদ সেনগুপ্ত-সহ আরও অনেকে স্বাক্ষর করেন। মমতার আশ্বাসের পরেও ভাটপাড়ায় শান্তি ফেরেনি। সেজন্যই তাঁর সঙ্গে ফের দেখা করলেন বিশিষ্টজনেদের প্রতিনিধি দল।

অপর্ণা সেনের কথায়, মুখ্যমন্ত্রীর আশ্বাস অনেকটা কার্যকর হলেও পুরোটা হয়নি। মুখ্যমন্ত্রী যেন সে বিষয়ে নজর রাখেন। কারণ, ভাটপাড়ায় শান্তি ফেরা জরুরি। বর্ষাকাল এসে গিয়েছে। সেই কারণে, সেখারকার গৃহহারা মানুষেরা বিপদে পড়তে পারেন। সেই বিষয়টিও উল্লেখ করেন তিনি। ফলে, মুখ্যমন্ত্রী যেন ভাটপাড়ায় শান্তি ফেরাতে দ্রুত উদ্যোগী হন।