বারাণসী: দেশজুড়ে পেঁয়াজের লাগামছাড়া দামে আম-আদমির চোখে জল। কোনওভাবেই নিয়ন্ত্রণে আনা যাচ্ছে না পেঁয়াজের এই মূল্যবৃদ্ধি। দেশের একাধিক রাজ্যে ১১০-২০০ টাকা পর্যন্ত বিক্রি হচ্ছে পেঁয়াজ। মাত্রাছাড়া দামের জেরে অনেকেই রোজকার মেনু থেকে সরিয়েই রাখছেন পেঁয়াজ। পেঁয়াজের সঙ্গেই পাল্লা দিয়ে বাড়ছে রসুনের দামও। আর এবার উত্তরপ্রদেশের বারাণসীতে পেঁয়াজ ও রসুনের দাম-বৃদ্ধি নিয়ে অভিনব প্রতিবাদ জানালেন সদ্য বিবাহিত দম্পতি। ফুলের বদলে পেঁয়াজ ও রসুন দিয়ে তৈরি মালা বদল করলেন বর-কনে।

শুধু বর-কনেই নয়। বিয়ে বাড়িতে নিমন্ত্রিত অনেককেই দেখা গেল ঝুড়ি-ভরতি পেঁয়াজ নিয়ে বিয়ে বাড়িতে ঢুকতে। স্থানীয় সমাজবাদী পার্টিরে এক নেতার মতে, আকাশ ছুঁয়েছে পেঁয়াজের দাম। পেঁয়াজকে এখন সোনার সঙ্গে তুলনা করতে শুরু করেছেন অনেকে। একই অবস্থা রসুনেরও। রসুনেরও ক্রমাগত দাম-বৃদ্ধিতে মাথায় হাত পড়েছে সাধারণ মানুষের। প্রতিবাদ জানাতে বর-কনে পেঁয়াজ-রসুনের মালা দিয়ে বিয়ে সারলেন। যা এক কথায় অভিনব। উত্তর প্রদেশের একাধিক বাজারে ১২০ টাকা কিলো দরে বিক্রি হচ্ছে পেঁয়াজ।

পেঁয়াজের দাম-বৃদ্ধি নিয়ে প্রতিবাদ জানিয়েছএন আরএ এক সমাজবাদী পার্টির নেতা। তিনি জানালেন, ওই বর-কনে সমাজকে একটি বার্তা দিতে চেযেছেন। দেজুড়ে যেভাবে পেঁয়াজ ও অন্য খাদ্যসামগ্রীর দাম বাড়ছে তারই প্রতিবাদ জানালেন বর-কনে। সমাজবাদী পার্টি রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে পেঁয়াজ ও অন্যান্য নিত্য প্রয়োজনীয় সামগ্রীর দাম-বৃদ্ধির প্রতিবাদ জানাতে একাধিক কর্মসূচিও নিয়েছে বলে জানালেন ওই নেতা।

মাসখানেক ধরেই বেড়ে চলেছে পেঁয়াজের দাম। দেশের অন্যান্য রাজ্যের পাশাপাশি পশ্চিমবঙ্গেও পেঁয়াজের লাগামছাড়া দাম-বৃদ্ধিতে মাথায় হাত আম-বাঙালির। অনেকেই হেঁশেলে পেঁয়াজ আনা বন্ধ রেখেছেন। আর যাঁরা কিনছেন তাঁরাও বেশ সাবধানী। অল্প পেঁয়াজ বাজারের থলেতে ভরেই ফিরছেন বাড়ি। বাড়ির রান্নায় পেঁয়াজের ব্যববার লক্ষ্যণীয় ভাবে কমেছে। রাজ্য সরকার সরকারি স্টলগুলি থেকে অল্প দামে পেঁয়াজ বিক্রির উদ্যোগ নিয়েছে। রাজ্যজুড়ে সুফল বাংলার একাধিক স্টলে ৫৯ টাকা কেজি দরে বিক্রি করা হচ্ছে পেঁয়াজ। রেশন দোকান ও স্বনির্ভর দলগুলির হাতেও অল্প দামে বিক্রির জন্য পেঁয়াজ দিচ্ছে রাজ্য সরকার। এত কিছুর পরেও মাসখানেক কাটতে চললেও খুচরো বাজারে কিছুতেই কমঠে না পেঁয়াজের দাম। বাইরের দেশ থেকে পেঁয়াজ আমদানি করার কথা বললেও আদতে তা আদৌ এদেশে আনা হয়েছে কিনা তাও স্পষ্ট নয়।