নয়াদিল্লি : দ্রুত ভ্যাক্সিন আনার জন্য তোড়জোড় চলচে বিশ্ব জুড়ে। ইঙ্গিত যা মিলছে তাতে, শীঘ্রই ভারতে ভ্যাক্সিন মিলতে পারে। অন্তত বয়স্ক বা ফ্রন্টলাইনে কাজ করা ব্যাক্তিদের ভ্যাক্সিন পাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে মাস কয়েকের মধ্যেই। তাই ভ্যাক্সিন কিনতে কয়েক শ কোটি টাকা মজুত রেখেছে কেন্দ্র।

এদিকে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রকের তরফে জানানো হয়েছে যে, করোনার প্রতিষেধক প্রয়োগের ক্ষেত্রে প্রথম ধাপে অন্তত তিনকোটি মানুষকে দেওয়া হবে এই টিকা। এই তিনকোটি মানুষের মধ্যে ৭০-৮০ লাখ রয়েছেন ডাক্তার, স্বাস্থ্যকর্মী এবং পুলিশ প্রশাসনে কর্মরত ব্যক্তিরা। সেক্ষেত্রে দেশের এই প্রথম সারির করোনা যোদ্ধাদের সংখ্যা ২ কোটি পর্যন্ত ছাড়িয়ে যেতে পারে বলে আশা প্রকাশ করা হয়েছে।

আর এই বিপুল সংখ্যক ভ্যাক্সিন কীভাবে সাধারণ মানুষের মধ্যে প্রদান করা হবে সেই বিষয়ে বিস্তারিত জানিয়েছেন কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্য মন্ত্রী হর্ষবর্ধন।

তিনি জানিয়েছেন, ভারতের মতো জনবহুল দেশে করোনার টিকা প্রদানের ক্ষেত্রে আইডি কার্ডের মতোন একটি ডিজিটাল হেলথ কার্ড বা ‘Universal Immunisation Program’ বা (UIP) নেটওয়ার্ক ব্যবহারের পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। যার সাহায্যে ভ্যাক্সিন প্রয়োগ থেকে শুরু করে কতজন মানুষকে তা দেওয়া হয়েছে ইত্যাদি যাবতীয় ডাটা এতে সংরক্ষিত থাকবে। যারফলে ১৩০ কোটির দেশের প্রতিটি কোণায় কোণায় সকল নাগরিকদের কাছে দ্রুত ভ্যাক্সিন পৌঁছে দেওয়া সম্ভব হবে।

বর্তমানে কেন্দ্রীয় সরকার নাগরিকদের জন্য কোভিড-১৯ ভ্যাক্সিন প্রয়োগের জন্য একটি রোল আউট পরিকল্পনা নিয়েছে। সেটি হল,করোনার টিকা বিতরণের ক্ষেত্রে সরকারের এই রোল আউট পরিকল্পনায় অংশ নিয়েছেন, এইমসের পরিচালক ডঃ রণদীপ গুলেরিয়া, বিদেশ বিষয়ক মন্ত্রক, বায়োটেকনোলজি, তথ্য প্রযুক্তি, স্বাস্থ্যসেবা-মহাপরিচালক, ভারতের এইডস গবেষণা ইনস্টিটিউট, ইন্ডিয়ান মেডিকেল রিসার্চ কাউন্সিল এবং বিভিন্ন রাজ্যগুলির প্রতিনিধিরা রয়েছেন।

ভ্যাক্সিন বাজারজাত হলে কারা পাবেন প্রথমে এটি?

স্বাস্থ্য মন্ত্রকের মতে, আমেরিকা ভিত্তিক রোগ নিয়ন্ত্রণ ও প্রতিরোধ কেন্দ্র এবং ‘হু’ এর সুপারিশের ভিত্তিতে এই ভ্যাকসিনের প্রাথমিক প্রবেশাধিকারের জনগণের অগ্রাধিকার বিভাগগুলির বিষয়ে একটি বিস্তৃত গবেষণা সমীক্ষা করা হয়েছে। যেহেতু স্বাস্থ্যমন্ত্রী হর্ষবর্ধন অনেক আগেই জানিয়েছিলেন যে, ভ্যাক্সিন আবিস্কারের পর যাদের সবথেকে বেশি প্রয়োজন তাঁদেরকেই আগে সরবরাহ করা হবে।

কাদের প্রথমে দেওয়া হবে টিকা সেই বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা, গবেষণার পর বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন, সর্বাধিক এক্সপোজার এবং উচ্চ-ঝুঁকিপূর্ণ চাকরিতে নিযুক্তএমন ৩ কোটি মানুষকে টিকা প্রদানের জন্য চিহ্নিত করা হয়েছে। তাঁরা হলেন, কেন্দ্রীয় ও রাজ্য পুলিশ বাহিনী, হোম গার্ডস, সশস্ত্র বাহিনী, পুর কর্মী এবং আশা কর্মী, ক্লিনার, শিক্ষক এবং গাড়ি চালক, ১ কোটি চিকিৎসক এবং ২ কোটি স্বাস্থ্যসেবা কর্মী।

টিকা দেওয়ার জন্য স্বাস্থ্যসেবা কর্মীদের তালিকা অক্টোবরের শেষের দিকে বা নভেম্বরের শুরুতে শেষ করা হবে।
এছাড়াও ৫০ বছরের বেশি বয়সী এবং ৫০ বছরের কম বয়সী ব্যক্তিদের অসুস্থতা বিবেচনা করে প্রথমবারে এই টিকা দেওয়া হবে।

ভ্যাক্সিনের সংরক্ষণ :- স্বাস্থ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন যে, কোভিড ভ্যাকসিন সরবরাহের জন্য সর্বশেষ ভ্যাকসিন স্টকের অবস্থান, স্টোরেজ সুবিধার তাপমাত্রা, জিইও-ট্যাগ স্বাস্থ্য কেন্দ্রগুলি এবং সুবিধা-স্তরের ড্যাশবোর্ড বজায় রাখতে পারে এমন ইভিআইএন নেটওয়ার্ক ব্যবহারের জন্য পুনর্বিবেচনা করা হচ্ছে।

ইভিআইএন নেটওয়ার্ক কী? ইভিআইএন নেটওয়ার্ক হল ভারতের তৈরি একটি দেশীয় প্রযুক্তি। যা ভ্যাকসিন স্টকগুলিকে ডিজিটাইজ করে এবং স্মার্টফোন অ্যাপ্লিকেশনটির মাধ্যমে কোল্ড চেইনের তাপমাত্রা পর্যবেক্ষণ করে। উদ্ভাবনী ইভিআইএন বর্তমানে ভারতের বারোটি রাজ্য জুড়ে আহ্বান করা হচ্ছে। ইভিআইএন এর লক্ষ্য এই রাজ্যের সমস্ত কোল্ড চেইন পয়েন্ট জুড়ে ভ্যাকসিন স্টক এবং প্রবাহ এবং স্টোরেজ তাপমাত্রার উপর রিয়েল-টাইম তথ্য সরবরাহ করে ভারত সরকারের সর্বজনীন টিকাদান কর্মসূচিকে সমর্থন করা।

ভ্যাকসিন ডিস্ট্রিবিউটশন :- প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বলেছিলেন যে , ভ্যাকসিন বিতরণ ভোটার নিবন্ধনের মহড়ার ভিত্তিতে হওয়া উচিত। যাতে কেউ বাদ না পড়ে। স্বাধীনতা দিবসের দিন প্রধানমন্ত্রী ইঙ্গিত দিয়েছিলেন যে, প্রতিটি নাগরিকের টিকা নিশ্চিত করার জন্য একটি “ডিজিটাল হেলথ আইডি” ব্যবহার করা হতে পারে।

এছাড়াও প্রধানমন্ত্রী লালকেল্লা থেকে স্বাধীনতা দিবসের ভাষণের দিন ঘোষণা করেছিলেন যে, জাতীয় ডিজিটাল স্বাস্থ্য মিশনের অংশ হিসাবে সরকার প্রতিটি ভারতীয়কে একটি অনন্য ডিজিটাল স্বাস্থ্য আইডি সরবরাহ করবে।
স্বাস্থ্য মন্ত্রকের এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, করোনভাইরাস ভ্যাকসিন বিতরণ ইউনিভার্সাল টিকাদান কর্মসূচির (ইউআইপি) অধীনে ভ্যাকসিন বিতরণের বর্তমান অনুশীলনের মতোই একই পথ অনুসরণ করবে।

ইউআইপি প্রক্রিয়াধীন, সরকার শিশু, শিশু এবং গর্ভবতী মহিলাদের ব্যাসিলাস ক্যালমেট-গেরিন (বিসিজি) ভ্যাকসিন, ওরাল পোলিও ভ্যাকসিন এবং হেপাটাইটিস বি, ডিপথেরিয়া, টিটেনাস এবং রোটা ভাইরাস সংক্রমণের বিরুদ্ধে বিভিন্ন ভ্যাকসিন সরবরাহ করে।

বর্তমানে দেশের চারটি কোভিড -১৯ ভ্যাকসিন ক্লিনিকাল ট্রায়ালের বিভিন্ন পর্যায়ে রয়েছে।

ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অফ মেডিকেল রিসার্চ অ্যান্ড ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অফ ভাইরোলজি সহ ভারত বায়োটেক ইন্টারন্যাশনাল লিমিটেডের বিকাশ, কোভাক্সিন কোভিড -১৯ ভারতের প্রথম দেশীয় টিকা প্রার্থী ছিলো। কোভাক্সিন বর্তমানে দেশে দ্বিতীয় ধাপের হিউম্যান ট্রায়ালে রয়েছে।

জাইডাস ক্যাডিলা দ্বারা তৈরি জাইকোভি-ডি আগস্ট মাসে দ্বিতীয় পর্যায়ের ক্লিনিকাল ট্রায়াল শুরু করেছিল।

পুনে ভিত্তিক ওষুধ প্রস্তুতকারী সংস্থা সিরাম ইনস্টিটিউট অফ ইন্ডিয়া অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে একযোগে ভ্যাকসিন আবিস্কারের কাজ করে চলেছে। বর্তমানে তাদের তৈরি ভ্যাক্সিন চূড়ান্ত ক্লিনিকাল ট্রায়াল শুরু করেছে।

ভারতীয় ওষুধ প্রস্তুতকারক সংস্থা ডিআর রেড্ডির ল্যাবরেটরিজ এবং আরডিআইএফ (রাশিয়ার সরাসরি বিনিয়োগ তহবিল) ডিসিজিআই (ভারতের ড্রাগ কন্ট্রোল জেনারেল অফ ইন্ডিয়ার) অনুমোদন পেয়েছে। এছাড়াও ভারতের কোভিড -১৯ ভ্যাকসিন স্পুটনিক ভি এর পর্যায় ২/৩ ক্লিনিকাল ট্রায়াল শুরুর সঙ্গে জড়িত।

জেলবন্দি তথাকথিত অপরাধীদের আলোর জগতে ফিরিয়ে এনে নজির স্থাপন করেছেন। মুখোমুখি নৃত্যশিল্পী অলোকানন্দা রায়।