লখনউ: সপ্তদশ লোকসভা নির্বাচনের ভোট গ্রহণের অন্তিম দফার ভোট গ্রহণ শুরু হয়ে গিয়েছে। সমগ্র দেশ জুড়ে চলছে ৫৯টি লোকসভা কেন্দ্রে চলছে ভোট গ্রহণ। ভোট গ্রহণের অন্তিম পর্বে বিদায়ী শাসক বিজেপি বিরুদ্ধে উঠল চাঞ্চল্যকর অভিযোগ।

হাতে টাকা গুজে দিয়ে আঙুলে কালি লাগিয়ে দেওয়া হয়েছে। অল্প কয়েকজন ভোটার নয়, গ্রামের বহু ভোটারদের উপরেই এই পদ্ধতি প্রয়োগ করা হয়েছে। শনিবার রাতের দিকে ঘটনাটি ঘটেছে উত্তর প্রদেশের চান্দৌলি গ্রামে। অভিযোগের তির ওই রাজ্যের শাসকদল বিজেপির দিকে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, চান্দৌলি গ্রামের তাঁরা জীবনপুর গ্রামে শনিবার রাতের দিকে চড়াও হয় বিজেপি আশ্রিত তিন দুষ্কৃতী। ওই তিন জনই গ্রামের ভোটারদের আঙুলে কালি লাগিয়ে দিয়ে যায়। তবে মাগ্নায় এই কম্ম ঘটায়নি তারা। আঙুলে কালি লাগানোর জন্য মাথাপিছু ৫০০ করে টাকা দেওয়া হয়। বিষয়টি চেপে যাওয়ার জন্য হুমকিও দেওয়া হয় বলে অভিযোগ।

স্থানীয় এক বাসিন্দা বলেছেন, “বিজেপির লোকেরা আমাদের আঙুলে কালি লাগিয়ে দিয়েছে। আর বলে গিয়েছে যে ওরাই পার্টির জন্য ভোট দিয়ে দেবে। আমরা আর ভোট দিতে পারব না।”

বৃহস্পতিবার উত্তর প্রদেশের চান্দৌলি জেলায় নির্বাচনী জনসভায় হাজির ছিলেন নরেন্দ্র মোদী। ওই লোকসভা কেন্দ্রে দলীয় প্রার্থীর জন্য প্রচারসভায় দাঁড়িয়ে তিনি বলেন, “অনেক রাজনৈতিক দল লোকসভায় আটটি আসন, ১০টি আসন, ২০-২২ টি আসন কিংবা ৩০-৩৫টি আসন জিততে পারবে। এই নিয়েই ওই সকল রাজনৈতিক দলের নেতারা প্রধানমন্ত্রী হওয়ার স্বপ্ন দেখছে।”

খুব স্বাভাবিকভাবেই ইঙ্গিতটা যে আঞ্চলিক রাজনৈতিক দলের দিকেই তা খবুই স্পষ্ট। কোনও দলের নাম উল্লেখ না করেও মোদী বলেন, “সবাই প্রধানমন্ত্রী হওয়ার স্বপ্ন দেখছে। কিন্তু সমগ্র দেশ বলছে, ‘আরও একবার মোদী সরকার।”