বেঙ্গালুরু: আন্তর্জাতিক বাজারের প্রায় ৭০ শতাংশের অভিমত, ২০০৮ সালের তুলনায় করোনা অতি মহামারীর প্রভাব বেশি। এই প্রভাব বাজেট, সাপ্লাই চেইন, কর্মী সহজলভ্যতা এবং গ্রাহকদের ঘনিষ্ঠতা সম্পর্কে। যৌথভাবে এই সমীক্ষা করেছে এইচ এফ এস রিসার্চ এবং ইনফোসিস।যা জানাচ্ছে, ৫১ শতাংশ সংস্থা মনে করছেন দূর থেকে কাজ অথবা হাইব্রিড ওয়ার্কফোর্স মডেল‌ ঠেলে দিচ্ছে ক্লাউডের দিকে। সাইবার সিকিউরিটি এবং আধুনিকীকরণের জন্য ডিজিটাল বিজনেস মডেলকে শক্তিশালী করছে এবং তথ্যপ্রযুক্তি ক্ষেত্রে খরচ বাড়ছে বলে লক্ষ্য করা গিয়েছে।

এই সমীক্ষায় নজর দেওয়া হয়েছে করোনা অতি মহামারী প্রভাব ফেলেছে ব্যবসাক্ষেত্রে। দেখা যাচ্ছে, বেশকিছু সংস্থা দ্রুত অটোমেশন, ডিজিটাল বিজনেস মডেল এবং হাইপার স্কেল ক্লাউড গ্রহণ করেছে যাতে গ্রাহকদের প্রয়োজন দ্রুত মেটানো যায় এবং প্রতিযোগিতামূলক অবস্থায় থাকা যায়।

সমীক্ষার রিপোর্ট আরও জানিয়েছেন, কর্পোরেট জগতের মানসিকতা পরিবর্তন হয়েছে এবং ডিজিটাল বিজনেসের দিকে সওয়াল করা হচ্ছে। এই সমীক্ষা চালানো হয়েছে ৪০০ গ্লোবাল ২০০০ এক্সিকিউটিভের উপর। যাতে একটা ধারণা পাওয়া যায় এই অতি মহামারীতে ব্যবসাকে বাঁচাতে তারা কি বুঝছেন।

দেখা গিয়েছে ,অন্তত ৬৫ শতাংশ প্রতিক্রিয়ায় জানিয়েছেন, বাণিজ্যের অস্থিরতা থেকে অন্তরণ ব্যবস্থা করতে গ্রাহকদের বৈচিত্র্যকরণ এবং কর্মতৎপর বিজনেস মডেলে লগ্নি করা হয়েছে। ৬০ শতাংশের বেশি সংস্থা পরিকল্পনা করেছে ডিজিটাল রূপান্তরিতকরণের গতি ত্বরান্বিত করার । ৭০ শতাংশ পরিকল্পনা করেছে গ্রাহকদের কথা ভেবে তাদের পণ্য পরিষেবার পরিবর্তন করেছে।

তথ্যপ্রযুক্তি জন্য চাহিদা আশা করা হচ্ছে এবং বিজনেস প্রসেস সার্ভিসে গতি আসবে দুটি কারণে ডিজিটালের দিকে ধাবিত হওয়া এবং অর্থ বাঁচানোর উদ্দেশ্যে। প্রায় ৯০ শতাংশ সংস্থা অনুভব করছে তাদের আগের অবস্থায় ফেরার যাতে নতুন অবস্থা থেকে মানুষকে মুক্তি দেওয়া যায়। ৩৭ শতাংশ চাইছে পুরনো অফিসের পরিবেশে ফিরতে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।