বেঙ্গালুরু: করোনাভাইরাস এবং ভিসা সংকটের জন্য মার্কিন মুলুকে অসুবিধায় পড়া কর্মী ও তাদের পরিবারকে চাটার্ড ফ্লাইটে করে দেশে ফিরিয়ে আনল তথ্যপ্রযুক্তি সংস্থা ইনফোসিস। কর্মী এবং তাদের পরিবার মিলে মোট ২০০জনকে ফিরিয়ে আনা হল। সোমবারে তারা দেশে ফিরেছে। ওই কর্মীরা বেঙ্গালুরু অথবা ভারতের অন্য কোন স্থান থেকে কাজ করবে বলে জানা গিয়েছে।

ইনফোসিসের এক্সিকিউটিভ সঞ্জীব বোড়ে সোশ্যাল মাধ্যমে জানিয়েছেন, বেশ কিছু ইনফোসিসের কর্মী অসহায় অবস্থায় আমেরিকায় ছিল কারণ তাদের ভিসার মেয়াদ শেষ হয়ে গিয়েছিল। এদিকে করোনা মহামারীর কারণে সমস্ত আন্তর্জাতিক বিমান বাতিল হওয়ায় তারা মুশকিলে পড়ে ছিল।

কোম্পানি এই প্রথম একেবারে চাটার্ড বিমান ভাড়া করল ২০০ কর্মী ও তাদের পরিবারকে আমেরিকা থেকে ভারতে নিয়ে আসার জন্য। এই উড়ান ভারতে পৌঁছানোয় সপ্তাহব্যাপী অনিশ্চয়তায় থাকা ওই কর্মী ও তার পরিবারের উদ্বেগের অবসান ঘটলো বলে জানিয়েছেন।

এদিকে আবার ইনফোসিসের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা নন্দন নিলেকানি টুইট করে জানিয়েছেন, “ইনফোসিস: দয়াশীল ধণতন্ত্র কাজ করছে।” পাশাপাশি তিনি রি টুইট করেছেন ইনফোসিসের এক কর্মীর সোশ্যাল মাধ্যমের একটি পোস্ট, যেখানে ছবিতে দেখা যাচ্ছে কর্মী ও তার পরিবারেরা দেশে ফিরেছেন।

ভারতে এখন ৩১ জুলাই পর্যন্ত আন্তর্জাতিক উড়ান নিষিদ্ধ আছে যেহেতু দেশে এখন করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়তে চলছে আনলক টু। অসামরিক বিমান পরিবহনের নিয়ন্ত্রক ডিজিসিএ জানিয়েছে,‌ আন্তর্জাতিক উড়ান চলা নিষিদ্ধের ‌ সময়সীমা ৩১ জুলাই পর্যন্ত বাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে এবং শুধুমাত্র পণ্যবাহী এবং ডিজিসিএ অনুমোদিত উড়ান চলাচলের অনুমতি দেওয়া হয়েছে।

এয়ার ইন্ডিয়া এবং অন্য বেসরকারি ৬টি উড়ান সংস্থা বন্দে ভারত মিশনের অধীনে অনির্ধারিত আন্তর্জাতিক প্রত্যাবাসন উড়ান চলাচল শুরু করেনছে ৬মে থেকে। অন্যদিকে দেশের ভিতরে নির্ধারিত উড়ান চলাচল শুরু হয় ২৫মে থেকে। তবে সেখানেও কঠোরভাবে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার নির্দেশিকা মানা হচ্ছে।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ