প্যারিস: সম্প্রতি কন্যাসন্তানের বাবা হয়েছেন। এরপর রোমানিয়ান পার্টনারকে সঙ্গে নিয়ে রোলা গাঁরোর শুরুটা ভালোই করলেন রোহন বোপান্না। মঙ্গলবার পুরুষদের ডাবলসে ষষ্ঠ বাছাইদের হারিয়ে ফরাসি ওপেনের দ্বিতীয় রাউন্ডে পৌঁছলেন রোহন বোপান্না-মারিয়াস কপিল জুটি।

এদিন প্রথম রাউন্ডে ক্লে-কোর্টে টুর্নামেন্টের ষষ্ঠ বাছাই প্রতিপক্ষকে স্ট্রেট সেটে উড়িয়ে দিল ইন্দো-রোমানিয়ান জুটি। অবাছাই হিসেবে টুর্নামেন্ট শুরু করা বোপান্না-কপিলকে এই জয় আগামীদিনে নিঃসন্দেহে আত্মবিশ্বাস জোগাবে। অবাছাই ইন্দো-রোমানিয়ান জুটির পক্ষে এদিন ম্যাচের ফল ৬-৩, ৭-৬(৭-৪)। দক্ষিণ আফ্রিকার রাভেন ক্লাসেন ও নিউজিল্যান্ডের মাইকেল ভেনাস জুটিকে এদিন ১ ঘন্টা ১৮ মিনিটের লড়াইয়ে পরাস্ত করেন বোপান্না-কপিল।

আরও পড়ুন: ফরাসি ওপেনে অল্পের জন্য রক্ষা পেলেন সেরেনা

প্রথম রাউন্ডের ম্যাচে প্রোটিয়া-কিউয়ি জুটির বিরুদ্ধে এদিন সারা ম্যাচে তিনটি ব্রেক পয়েন্টের মুখোমুখি হন বোপান্না ও তাঁর রোমানিয়ান পার্টনার। কিন্তু তিনটি ব্রেক পয়েন্টই রক্ষা করে অবাছাই এই জুটি এবং তারমধ্যে থেকে একটি ব্রেক পয়েন্ট নিজেদের দখলে নিয়ে নেন বোপান্না-কপিল। বিশ্ব র‍্যাংকিংয়ে ৪০ নম্বর বোপান্না গতবছর রোলা গাঁরোর কোয়ার্টার ফাইনালে পৌঁছেছিলেন।

আরও পড়ুন: রোলাঁ গারোর দ্বিতীয় রাউন্ডে রাফা-জোকার

সিঙ্গলসে একমাত্র ভারতীয় হিসেবে প্রজ্ঞেশ গুনেশ্বরণ প্রথম রাউন্ডে বিদায় নেওয়ার পর ডাবলসের দিকে চেয়ে থাকা ছাড়া উপায় নেই ভারতের। রোহন বোপান্না ছাড়াও ফরাসি ওপেনের ক্লে-কোর্টে ডাবলসের লড়াইয়ে রয়েছেন র‍্যাংকিংয়ে দেশের সর্বোচ্চ দ্বিবিজ শরণ। এছাড়াও রয়েছেন লিয়েন্ডার পেজ ও জীবন নেদুনচেঝিয়া। বোপান্নার প্রাক্তন সঙ্গী শরণ নামবেন তাঁর ব্রাজিলের মার্সেলো ডেমোলিনারকে সঙ্গে নিয়ে। অন্যদিকে ডাবলসে তিনবারের ফরাসি ওপেন জয়ী কিংবদন্তি পেজ নামবেন ফরাসি বেনিতো পাইরেকে সঙ্গী করে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.