ঢাকা:  ভারতে লোকসভা নির্বাচন চলার মাঝেই কূটনৈতিক বার্তা দিল বাংলাদেশ সরকার৷ দুই দেশের মধ্যে দীর্ঘ সময় ধরে আটকে থাকা তিস্তা জলবন্টন চুক্তি মাত্র সময়ের ব্যাপার৷ জানিয়ে দিলেন বাংলাদেশের বিদেশমন্ত্রী ড. একে আবদুল মোমেন৷ তিনি জানিয়েছেন-তিস্তা নিয়ে আলোচনা এমন চূড়ান্ত পর্যায়ে গেছে যে সই হবে হবে। তারপরে একজনের কারণে এটা একটু দেরি হয়েছে।

তিস্তা চুক্তি সম্পাদনে নয়াদিল্লি ও ঢাকা সম্মত থাকলেও পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের আপত্তিতে সেটি আটকে রয়েছে৷ বাংলাদেশের বিদেশমন্ত্রী জানিয়েছেন, ভারতের প্রধানমন্ত্রী ও বিদেশমন্ত্রীর সঙ্গে এই বিষয়ে কথা হয়েছে।

শনিবার ঢাকায় ফরেন সার্ভিস একাডেমি সুগন্ধায় ‘ওয়াটার ডিপ্লোম্যাসি’ নিয়ে সার্টিফিকেট কোর্সের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে বিদেশমন্ত্রী ভারতের সঙ্গে সই হওয়া গঙ্গার জল বন্টন চুক্তি সম্পাদনের কথা তুলে ধরেন৷ তারপরেই তিনি জানান, তিস্তা চুক্তি সই হওয়া সময়ের ব্যাপার মাত্র। এই চুক্তি নিয়ে উদ্বিগ্ন না হওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন তিনি।

গরমের সময়ে জলের চাহিদা বেড়ে যায়৷ তিস্তার জল প্রবাহ ভারত ও বাংলাদেশে প্রবাহিত৷ আন্তর্জাতিক আইনে এই জল পেতে চায় বাংলাদেশ সরকার৷ কিন্তু পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, তিস্তার দল দেওয়া সম্ভব নয়৷ কারণ তাতে জল তেমন থাকছে না৷ বদলে তিনি তোর্সা সহ অন্য নদীর জল বণ্টনে আগ্রহী৷ ফলে ভারতের কেন্দ্র সরকার রাজি থাকলেও পশ্চিমবঙ্গ সরকারের আপত্তিতে সেই চুক্তি আটকে রয়েছে৷

অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের বিদেশমন্ত্রী জানান, এর আগে দুই দেশের মধ্যে গঙ্গার জলবন্টন চুক্তি সম্পাদিত হয়েছে৷ রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন, ঐতিহাসিক গঙ্গা জলবন্টন চুক্তিতে তৎকালীন পশ্চিমবঙ্গ সরকারের মুখ্যমন্ত্রী জ্যোতি বসুর ভূমিকা ছিল৷