নয়াদিল্লি: সপ্তাহ দুয়েক আগেই রিসেশনের কথা জানিয়েছিল রিজার্ভ ব্যাংকের একটি টিম। সমীক্ষা করে জানানো হয়েছিল ভারতের অর্থনীতি রিসেশনের মুখোমুখি। এবার আনুষ্ঠানিকভাবে জানানো হল সেকথা।

শুক্রবার জিডিপি সংক্রান্ত যে রিপোর্ট প্রকাশিত হয়েছে, তাতেই এই তথ্য প্রকাশ্যে এসেছে।

২০২০-২০২১-এর জুলাই-সেপ্টেম্বরের কোয়ার্টারে জিডিপি ৭.৫ শতাংশে পৌঁছেছে। শুক্রবার সেকেন্ড কোয়ার্টারের জিডিপি-র তথ্য সামনে এসেছে। আর তা থেকেই বলা হচ্ছে, টেকনিক্যাল রিসেশন। যা এর আগে ১৯৯৬ সালে দেখা গিয়েছিল। ২৪ বছর পর ফের একই ঘটনা।

এর আগে একাধিক অর্থনীতিবিদ ও আরবিআই-এর ডেপুটি গভর্নরের একটি রিপোর্টে বলা হয়, দ্বিতীয় কোয়ার্টারে ফের একবার নীচে নেমেছে অর্থনীতির সূচক, যা দেশকে এক অভূতপূর্ব রিসেশনের দিকে নিয়ে যাবে।

মানিটারি পলিসির দায়িত্বে থাকা রিজার্ভ ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নর মাইকেল পাত্রর নেতৃত্বাধীন বিশেষজ্ঞ দল নিজেদের রিপোর্টে জানিয়েছে, সেপ্টেম্বরে শেষ হওয়া ত্রৈমাসিকেও দেশের জিডিপি ৮.৬ শতাংশ সংকুচিত হতে চলেছে।

ওই রিপোর্টেই বলা হয়, ২০২০-২১ অর্থবর্ষের প্রথমার্ধে টেকনিক্যাল রিসেশন অর্থাৎ মন্দায় প্রবেশ করেছে। যদিও সরকারিভাবে সেই রিপোর্ট এখনও প্রকাশ করা হয়নি। আগামী ২৭ নভেম্বর তা প্রকাশিত হওয়ার কথা।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, পরিবর্তিত পরিস্থিতিতে অর্থনীতিকে দাঁড় করানোর জন্য মূলত রিজার্ভ ব্যাংকের উপরই নির্ভর করতে হচ্ছে সরকারকে। অর্থমন্ত্রী বা প্রধানমন্ত্রী সে অর্থে বিশেষ কোনও কার্যকরী নীতিই গ্রহণ করতে পারেননি।

কেন্দ্র যে তথাকথিত প্যাকেজের কথা বলছে, সেটি মুলত ঋণ সর্বস্ব। যার সুবিধা সরাসরি সাধারণ মানুষ পাচ্ছে না। আর সাধারণ মানুষ সরাসরি সুবিধা না পেলে আর যাই হোক অর্থনীতির দৈন্যদশা যে ঘুচবে না। তবে দেরিতে হলেও সম্ভবত বোধদয় হচ্ছে সরকারের।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।