নয়াদিল্লি: শরীরটা কিছুদিন ধরেই ভালো যাচ্ছিল না রীতার। বয়সজনিত কারণেই মঙ্গলবার মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ল ভারতের সবচেয়ে বয়স্ক শিম্পাঞ্জি রীতা। বয়স হয়েছিল অনেকটাই। শরীরের নানা সমস্যার সঙ্গে যুঝতে যুঝতে অবশেষে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেছে সে। দিল্লির চিড়িয়াখানাতে সে মারা গিয়েছে বলে জানিয়েছে সেখানকার কতৃপক্ষ।

দিল্লি চিড়িয়াখানার এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন রীতার বয়স হয়েছিল ৫৯ বছর। জুলাই মাসের ২৭ তারিখ থেকেই শরীর আরও খারাপ হতে শুরু করে। ঠিকমত খাওয়াদাওয়া করাও বন্ধ করে দিয়েছিল সে৷ যে কারণেই শরীর আরও ভাঙতে শুরু করেছিল তার। ২৭ জুলাই থেকে শুধু রস, নারকেলের জল ও দুধ খাচ্ছিল। তার পরেও সব চেষ্টা ব্যার্থ করে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ল রীতা।

লিমকা বুক অফ রেকর্ডস অনুসারে ১৯৬০ সালের ১২ ডিসেম্বর মাসে সে আমস্টারডামের এক চিড়িয়াখানায় জন্মায় রীতা। ১৯৯০ সাল থেকে দিল্লি চিড়িয়াখানার একজন সদস্য হয়। ভারতের প্রাচীন শিম্পাঞ্জি ছিল এই রীতাই। হয়তো বা এশিয়ার মধ্যেও প্রাচীন ছিল সে। একজন শিম্পাঞ্জি বাঁচে প্রায় ৫০ বছর। সেদিক থেকে দেখতে গেলে মৃত্যুর সঙ্গে এক নয়া ইতিহাস গড়ে দিয়ে গেল রীতা।