ভুবনেশ্বর: নতুন করে ফের নির্ভয় ক্রুজ মিসাইলের পরীক্ষা করতে চলেছে ভারত। পর পর দুটি অসফল উৎক্ষেপণের পর, আবার নতুন করে তৈরি হয়েছে নির্ভয় মিসাইল৷ আগামী ৭-৯ নভেম্বরের মধ্যে অত্যাধুনিক এই মিসাইলের পরীক্ষা করতে চলেছে ডিআরডিও। আর পরীক্ষার আগে যুদ্ধকালীন তত্‍পরতায় এখন চলছে মিসাইলের শেষ পর্যায়ের কাজ। কারণ, এবার আর কোনও ঝুঁকি নিতে চাইছেন না বিজ্ঞানীরা৷

সম্পূর্ণ দেশীয় পদ্ধতিতে তৈরি নির্ভয় ক্রুজ মিসাইলের ওপর যথেষ্ট ভরসা রাখছেন গবেষকরা৷ ওডিশা উপকূলে এই উৎক্ষেপণ প্রক্রিয়া চলবে৷ কড়া নিরাপত্তার মধ্যে দিয়ে সেই প্রস্তুতিতেই আপাতত ব্যস্ত ডিআরডিও-র বিজ্ঞানীরা৷ বিগত পাঁচ বছরে এই নিয়ে পঞ্চম বার উৎক্ষেপণের প্রস্তুতি নিতে চলেছে নির্ভয় মিসাইল৷ তবে এই প্রথমবার টার্বো জেট ইঞ্জিনের সাহায্য নেওয়া হচ্ছে৷ প্রসঙ্গত ২০১৪ সালে দ্বিতীয় বার পরীক্ষামূলক উৎক্ষেপণের সময় আংশিক সাফল্যের মুখ দেখলেও, পুরোপুরি সফল হতে পারেনি নির্ভয় মিসাইল৷

আরও পড়ুন: ভারত মহাসাগরে চিনকে আটকাতে ১০ দেশের সঙ্গে হাত মেলাল ভারত

২০১৩ সালে ১২ই মার্চ প্রথমবার উৎক্ষেপিত হয় নির্ভয়৷ মাত্র ২০ মিনিট আকাশে থাকার পরেই সেটি মাটিতে আছড়ে পড়ে৷ ওডিশার জগৎসিংহপুর জেলার একটি ফলের বাগানে আছড়ে পড়ে সেটি৷ উৎক্ষেপণ এলাকা থেকে ১৫০ কিমি দূরে দুর্ঘটনাটি ঘটে৷ নির্ভয়ের সর্বশেষ পরীক্ষমূলক উড়ান হয় ২০১৬ সালের ২১ ডিসেম্বর৷ তবে তা একেবারেই সফল হয়নি৷

ছ মিটার লম্বা ও দুটি পাল্লায় বিভক্ত মিসাইলটি ১০০০ কিমি দূরত্বের লক্ষ্যবস্তুতে আঘাত হানতে সক্ষম৷ এবারের নির্ভয় ক্রুজ মিসাইলের পরীক্ষা বড়সড় চ্যালেঞ্জ বিজ্ঞানীদের কাছে। দেশের সামরিক বাহিনীর কাছে এই মিসাইল খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কারণ এটি দূর পাল্লার সাবসনিক ক্রুজ মিসাইল৷ এমনকি, শত্রু পক্ষের রাডারেও নির্ভয় মিসাইলের গতিবিধি ধরা পড়ে না৷ নির্ভয়কে যৌথভাবে তৈরি করেছে ডিআরডিও এবং এয়ারোনটিক্যাল ডেভেলপমেন্ট এসটাবলিশমেন্ট বা এটিই৷ প্রায় ১৫০০ কেজি ওজনের নির্ভয় ক্রুড মিসাইল ২০০ কেজি ওজনের সমরাস্ত্র বহনে সক্ষম৷

আরও পড়ুন: বাংলাদেশ সেনাবাহিনীকে জঙ্গল যুদ্ধের কৌশল শেখাবে ভারত