নয়াদিল্লি: ভারতের আর্থিক ঘাটতি চলতি অর্থ বর্ষের প্রথম দুই মাসেই দাঁড়িয়েছে ৪.৬৬ ট্রিলিয়ন টাকা (৬১.৬৭ বিলিয়ন ডলার) বা পুরো আর্থিক বছরের জন্য বাজেটে যা লক্ষ্যমাত্রা ছিল তার ৫৮.৬ শতাংশ। মঙ্গলবার সরকারের দেওয়া তথ্য এমনটাই জানাচ্ছে।
এপ্রিল-মে মাস এই সময় নিট কর বাবদ পাওয়া গিয়েছে ৩৩৮.৫ বিলিয়ন টাকা (৪.৪৮ বিলিয়ন ডলার) যেখানে মোট খরচ হয়েছে ৫.১২ ট্রিলিয়ন টাকা। এই তথ্য ইঙ্গিত দিচ্ছে সরকারকে মহামারী মোকাবিলা করতে গিয়ে কেমন করে খরচ করতে হচ্ছে অথচ তেমন আয় হচ্ছে না।
প্রসঙ্গত মার্চ মাসের শেষে ২০১৯-২০ অর্থবর্ষে আর্থিক ঘাটতি পৌঁছে গিয়েছিল জিডিপির ৪.৬ শতাংশ যেখানে আগে এই ঘাটতি ধরা হয়েছিল ৩.৩ শতাংশ।
গোটা বিশ্বজুড়েই এখন করোনা মহামারীর আকার ধারণ করেছে। করোনার থাবা বসেছে এ দেশের উপর। করোনাকে আটকাতে লকডাউন ঘোষণা করেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। এই পথে  হাঁটতে গিয়ে দেশের সমস্ত রকম অর্থনৈতিক কার্যকলাপ বলতে গেলে স্তব্ধ হয়ে যায়। এখন লকডাউন চললেও তা ধীরে ধীরে অনেক কাজ কর্ম শুরু করার ব্যাপারে নিয়ম বিধি শিথিল করা  শুরু হয়েছে।
গর্ত আর্থিক বছরের সামান্য কয়েকটা দিন এই করোনা সংকটের প্রভাব দেখেছিল। তাই তার প্রভাব অতটা ছিল না। বরং নতুন অর্থবর্ষে শুরু থেকেই করোনা সংকট চলছে বিশেষত প্রথম দুই মাস এপ্রিল-মে তে অর্থনৈতিক প্রভাব খুবই বেশি ছিল।  ফলে আর্থিক ঘাটতির যে তথ্য আসছে সেটা তারই প্রতিফলন বলে মনে করছেন অর্থনীতিবিদদের একাংশ।

Proshno Onek II First Episode II Kolorob TV