doctor-3

নয়াদিল্লি : লকডাউন উঠে গিয়েছে। চলছে আনলক ১। নিজেদের সতর্ক হতে হবে, বলেই দিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। কিন্তু আদৌ কি সতর্ক হয়েছেন কেউ। দেশে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দেখে কিন্তু তা মনে হচ্ছে না। এরই মধ্যে আশঙ্কার কথা শোনাল নয়াদিল্লির এইমস হাসপাতাল।

ইন্ডিয়া টুডেকে দেওয়া সাক্ষাতকারে এইমসের ডিরেক্টর রণদীপ গুলারিয়া বলেন, ভারতে এখনও করোনা তার সর্বোচ্চ সীমায় পৌঁছয়নি। সেই সময় আসতে আরও খানিকটা বাকি রয়েছে। গুলারিয়ার মত দেশ জোড়া ফল হয়নি বিশেষ। লকডাউনে লাভ হলে, এভাবে রেকর্ড সংখ্যক হারে করোনা বৃদ্ধি পেত না।

বিভিন্ন রাজ্য বিভিন্ন সময়ের সর্বোচ্চ সীমায় পৌঁছবে করোনা। ভারতের জনসংখ্যার বিশালতার জন্যই এই পরিস্থিতি। অন্যান্য ইউরোপিয়ান দেশগুলির সঙ্গে ভারতের তুলনা করলে চলবে না বলে মনে করছেন এইমসের ডিরেক্টর। তাঁর মতে ইউরোপের দু-তিনটি দেশের মোট জনসংখ্যা মিলিয়েও ভারতের সমান হবে না।

তবে ভারতে মৃত্যুর হার কম, এটাই স্বস্তি দিচ্ছে গুলারিয়াকে। তিনি বলেন, যে পরিমাণ আক্রান্ত হয়েছেন, তার তুলনায় মৃত্যুর হার বেশ কম। এটাই সাফল্য। তবে দিল্লিতে গোষ্ঠী সংক্রমণ শুরু হয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি। সেখানে প্রতি চারজনের মধ্যে একজনকে করোনা পরীক্ষা করাতে হচ্ছে।

গুলারিয়ার মতে দেশে মোট ১০-১২টি শহর আছে, যেখানে গোষ্ঠী সংক্রমণ শুরু হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। তবে লকডাউন যে সেভাবে কোনও প্রভাব করোনা ভাইরাসের ছড়িয়ে পড়ার ওপরে ফেলতে পারেনি, তা বলাই বাহুল্য।

এর আগে, ড. রণদীপ গুলেরিয়া বলেছিলেন, জুন ও জুলাই মাসে করোনার প্রকোপ সর্বোচ্চ হতে পারে আমাদের দেশে।তিনি বলেছিলেন, ”মডেলিং ডেটা অনুযায়ী, যেভাবে আমাদের দেশে আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে তাতে জুন ও জুলাই মাসে এই সংখ্যা সর্বোচ্চ হতে পারে।’ তবে এই সংখ্যা অনেক কিছুর উপর নির্ভর করবে বলে জানান তিনি। লকডাউন বাড়ানোর কী পরিণাম হয়েছে, সেদিকেও নজর রাখার কথা বলেন তিনি।

অন্যদিকে, গবেষকরা বলছেন, পরিসংখ্যানের বিচারে এপ্রিল মাসের দ্বিতীয়ার্ধে দেশে করোনা বৃদ্ধির হার নিম্নমুখী হয়েছিল। তবে, মে মাসের ৩ তারিখের পর থেকে সেই প্রবণতার উল্টো ছবি দেখা গিয়েছে। স্বাস্থ্যমন্ত্রকের দেওয়া পরিসংখ্যান অনুযায়ী, করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধির হার ৮ এপ্রিল থেকে নিম্নমুখী হয়েছিল। গোটা এপ্রিল মাসজুড়েই প্রায় তা অব্যাহত ছিল। কিন্তু, ৩ মে থেকে তিনদিনের হিসেবে সংক্রমণ নতুন করে বৃদ্ধি পেতে শুরু করেছে বলে দেখা গিয়েছে। জুন মাসেও করোনা সংক্রমণ কমার কোনও লক্ষ্মণ নেই। উলটে তা বেড়েই চলেছে।

প্রশ্ন অনেক-এর বিশেষ পর্ব 'দশভূজা'য় মুখোমুখি ঝুলন গোস্বামী।