নয়াদিল্লি: করোনা সারানোর কোনও ওষুধ নেই ঠিকই। তবে করোনার চরম উসর্গকে বাগে আনতে কিছুটা হলেও সাহায্য করছে বেশ কয়েকটি ওষুধ। যার মধ্যে অন্যতম ‘রেমডেজিভির।’ এবার ভারতের বাজারে অপেক্ষাকৃত কম দামে এল সেই ওষুধ।

ওষুধ নির্মাণকারী সংস্থা জাইডাস ক্যাডিলা এখনও পর্যন্ত সবথেকে সস্তার এই অ্যান্টিভাইরাল ওষুধ ‘রেমডেজিভির’ আনল ভারতের বাজারে। বিশ্বের তৃতীয় সর্বাধিক সংক্রমণের দেশ ভারত। আর সেখানেই অভাব দেখা দিয়েছে এই ওষুধের। তাই এই ওষুধ সস্তায় আনা অত্যন্ত জরুরি ছিল।

জায়ডাস ক্যাডিলার এই ওষুধের নাম ‘রেমড্যাক।’ এটির ১০০ মিলিগ্রামের দাম পড়ছে ২৮০০ টাকা। এক বিবৃতিতে ওই সংস্থা জানিয়েছে, ডিস্ট্রিবিউশন চেনের মাধ্যমে দ্রুত এই ওষুধ দেশের সব সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে পৌঁছনোর ব্যবস্থা করা হবে।

ক্যাডিলা হেল্থ কেয়ার লিমিটেডের ম্যানেজিং ডিরেক্টর ড. শর্বিল পটেল বলেন, করোনার চিকিৎসার জন্য এটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি ওষুধ। আর রেমড্যাক হল সেই ওষুধের সবথেকে সস্তার ভার্সান। তিনি আরও বলেন, ‘অতিমারীর পরিস্থিতিতে আমাদের সংস্থার উদ্দেশ্য মানুষের চিকিৎসায় সাহায্য করা। সেটা ভ্যাক্সিন এনেই হোক, ওষুধের প্রোডাকশন বাড়িয়েই হোক কিংবা টেস্টের সুযোগ বাড়িয়েই হোক।’

‘জিলিয়াড সায়েন্স’ সংস্থার সঙ্গে চুক্তি করে এই ড্রাগ তৈরি করছে এই ভারতীয় সংস্থা। যেসব করোনা আক্রান্তদের উপসর্গ বেশি দেখা যাচ্ছে, তাদের চিকিৎসার জন্যই এই ওষুধ ব্যবহারে সম্মতি দিয়েছে ইউএস ফুড অ্যান্ড ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্রেশন।’

ভারতের এর আগে এই ‘রেমডেজিভির’ ওষুধ বাজারে এনেছে হেটেরো ল্যাব, সিপলা, মাইলান এনভি ও জুবিলিয়ান্ট লাইফ সায়েন্স। এই সংস্থা হল পঞ্চম, যারা এই ড্রাগ বাজারে আনল।

এই সংস্থা ZyCov-D নামে একটি ভ্যাক্সিন তৈরি করছে, যার ফেজ-২ ট্রায়াল চলছে।

এদিকে, দেশজুড়ে বাড়ছে করোনা সংক্রমণ। বৃহস্পতিবার সকালের হিসেব অনুযায়ী, ২৪ ঘন্টায় দেশজুড়ে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন আরও ৬৬ হাজার ৯৯৯ জন। মৃত্যু হয়েছে ৯৪২ জনের।

নতুন করে সংক্রমণের জেরে দেশে মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২৩ লক্ষ ৯৬ হাজার। এর মধ্যে অ্যাক্টিভ কেস হল ৬ লক্ষ ৫৩ হাজার ৬২২। সুস্থ হয়ে উঠেছে ১৬ লক্ষ ৯৫ হাজার ৯৮২ জন। দেশজুড়ে মোট মৃত্যু হয়েছে ৪৭ হাজার ৩৩ জন।

করোনার বিদ্যুৎ গতির সংক্রমণ গোটা দেশে। একটানা প্রতিদিন ৬০ হাজারের কাছাকাছি বা তারও বেশি সংখ্যায় সংক্রমণ ছড়াচ্ছে গোটা দেশে।

গত এক সপ্তাহ ধরে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও ব্রাজিলের থেকেও বেশি করোনা আক্রান্ত ধরা পড়েছে ভারতে। একটি সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে, গত এক সপ্তাহে বিশ্বজুড়ে যত নতুন করোনার সংক্রমণ ঘটেছে, তার ২৩ শতাংশই ভারতে।

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও