ক্রাইশ্চচার্চ: ‘সকালটা দেখলেই বোঝা যায় বাকি দিনটা কেমন যাবে’। বহুল প্রচলিত এই কথা যে সবসময় সত্যি নাও হতে পারে হ্যাগলে ওভালে রবিবার বুঝিয়ে দিলেন ভারতীয় ব্যাটসম্যানরা। দ্বিতীয়দিন সকালে মহম্মদ শামি, জসপ্রীত বুমরাহদের আগুনে স্পেল মাটি ধরাল কিউয়ি ব্যাটসম্যানদের। দুর্ধর্ষ দু’টি ক্যাচ তালুবন্দী করলেন রবীন্দ্র জাদেজা। মাত্র ২৪২ রানের পুঁজি নিয়ে প্রথম ইনিংসে যে ভারত লিড নিতে পারে, অন্তত প্রথমদিনের শেষে স্বপ্নেও ভাবতে পারেনি দেশের ক্রিকেট অনুরাগীরা।

আসলে গতকাল শুরুটা এত জমাট করেছিলেন দুই কিউয়ি ওপেনার টম ব্লান্ডেল ও টম ল্যাথাম। উলটোদিকে বেশ অসহায় লাগছিল ভারতের পেস আটাককে। দ্বিতীয়দিন সকালে সেই পেস অ্যাটাক ফনা তুলতেই ধীরে ধীরে গুটিয়ে যেতে থাকল নিউজিল্যান্ড। শেষ অবধি ভারত প্রথম ইনিংসে লিড নিল ৭ রানে। কিন্তু দ্বিতীয় ইনিংসে ফের ব্যর্থ টপ অর্ডার। বোল্টের দাপটে প্রথম ইনিংসের চেয়ে দ্বিতীয় ইনিংসে ভারতীয় ব্যাটসম্যানদের অবস্থা আরও শোচনীয়। প্রথম সারির পাঁচ ব্যাটসম্যানের সঙ্গে প্যাভিলিয়নে ফিরেছেন ‘নাইট ওয়াচম্যান’ উমেশ যাদবও। দিনের শেষে দ্বিতীয় ইনিংসে ভারতের রান ৬ উইকেট হারিয়ে ৯০। এককথায় বোলারদের গড়ে দেওয়া মঞ্চের ফায়দা তুলতে ব্যর্থ ব্যাটসম্যানরা।

৯.৫ ব্যাটিং গড়ে সিরিজের চতুর্থ তথা শেষ ইনিংসে ১৪ রানে ফিরলেন কোহলি। যা তাঁর কেরিয়ারের দ্বিতীয় সর্বনিম্ন। প্রথম ইনিংসে সাউদির পর দ্বিতীয় ইনিংসে ভারত অধিনায়ককে লেগ বিফোর উইকেট করলেন কলিন ডি গ্র্যান্ডহোম। প্রথম ইনিংসে অর্ধশতরানের পর দ্বিতীয় ইনিংসে ১৪ রানে ফিরলেন পৃথ্বী। আরেক ওপেনার ময়াঙ্কের সংগ্রহে মাত্র ৩। একবার জীবন ফিরে পেয়েও তা কাজে লাগাতে ব্যর্থ ডেপুটি রাহানে। যে ঢং’য়ে উইকেট দিয়ে এলেন তিনি, সেটা চোখে দেখা যায় না।

ক্রিজে থিতু হয়ে গিয়েও শেষবেলায় ব্যক্তিগত ২৪ রানে উইকেট খুঁইয়ে এলেন পূজারা। বোল্টের গুঁতোয় টিকলেন না নাইট ওয়াচম্যান যাদবও। ১ রানে ফিরলেন তিনি। ক্রিজে ৫ রানে অপরাজিত হনুমা বিহারী। অপরাজিত ১ রানে তাঁর সঙ্গী ঋষভ পন্ত। সবমিলিয়ে অসম্ভবকে সম্ভব করে সিরিজে সমতা ফেরানোর যে আশা দেখিয়েছিলেন বোলাররা, পড়ন্তবেলায় সেই আশাই ফিকে হতে থাকল ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতায়।

এর আগে নিউজিল্যান্ডের প্রথম ইনিংসে একমাত্র অর্ধশতরানকারী ওপেনার টম ল্যাথাম (৫২)। গতকাল ২৯ রানে অপরাজিত ব্লান্ডেল এদিন আউট হন মাত্র ১ রান যোগ করে। শেষদিকে দীর্ঘকায় জেমিসনের ৪৯ রান ২৩৫ রানে পৌঁছতে সাহায্য করে কিউয়িদের। ৪ উইকেট নিয়ে ভারতের সবচেয়ে সফল বোলার মহম্মদ শামি। ৩ উইকেট নিয়ে দারুণভাবে ছন্দে ফিরলেন বুমরাহ। জাদেজার ঝুলিতে ২টি উইকেট। ১টি উইকেট নিয়েছেন উমেশ যাদব।

পপ্রশ্ন অনেক: নবম পর্ব

Tree-bute: আমফানের তাণ্ডবের পর কলকাতা শহরে শতাধিক গাছ বাঁচাল যারা