নয়াদিল্লি: প্রোমোশন পেলেন ভারতের অনূর্ধ্ব-১৭ ফুটবল কোচ নর্টন মাতোস৷ এবার ভারতের অনূর্ধ্ব-১৯ দলের দায়িত্ব সামলাতে চলেছেন তিনি৷ নভেম্বরেই এএফসি কাপের যোগ্যতাঅর্জন পর্বের ম্যাচ খেলবে ভারতীয় অনূর্ধ্ব-১৯ দল৷ সেই দলকেই কোচিং করাতে চলেছে মাতোস৷ পাশাপাশি আই লিগে জুনিয়রদের নিয়ে গড়া এআইএফএফ দলকেও কোচিং করাবেন তিনি৷

আরও পড়ুন- মোদীর স্বচ্ছ ভারত অভিযানে উজ্জ্বল যুবভারতী, লজ্জিত দিল্লি

বিশ্বকাপ অভিযানের তিন ম্যাচে কোন পয়েন্ট না পেলেও অনূর্ধ্ব-১৭ ফুটবলাররা আশা জাগাতে পেরেছে৷ তাই এই দলকে নিয়েই স্বপ্ন দেখছে ফেডারেশন৷ নভেম্বরে শুরু হতে চলা আই লিগেও ফেডারেশনের দলে থাকবে এই জুনিয়র ফুটবলাররা৷  ইতিমধ্যেই বিশ্বকাপের দলে থাকা ১২ জন ফুটবলারকে আই লিগের ফেডারেশন দলে সই করানো হয়েছে৷ আই লিগে ভারতের তাবড় তাবড় দলগুলিকে জোড় টক্কর দেবে বিশ্বকাপ খেলা ভারতীয় ফুটবলাররা এমনটাই আশা রাখছে ফেডারেশন৷ পাশাপাশি এখন থেকেই নতুন লক্ষ্য স্থির করে অনূর্ধ্ব-১৯ দলের প্রস্তুতি শুরু করে দিতে চলেছে ফেডারেশন৷

বিশ্বকাপ খেলা দলের একাধিক ফুটবলারকে অনূর্ধ্ব ১৯ দলে রেখে এগোতে চাইছে সর্বভারতীয় ফুটবল সংস্থা৷ সেই সঙ্গে অনূর্ধ্ব-১৯ দলের ফুটবলারদের মধ্যে কয়েকজনকে বেছে নতুন টিম গড়ার কাজ দ্রুত শুরু করে দিতে চায় প্রফুল প্যাটেল অ্যান্ড কোং৷

আরও পড়ুন- এশিয়া কাপে বাংলাদেশকে উড়িয়ে দিল ভারত

নভেম্বরেই অনূর্ধ্ব- ১৯ এএফসি কাপের যোগ্যতা অর্জন ম্যাচ খেলতে সৌদি আরব উড়ে যাবে ভারত৷ গ্রুপ পর্বে ব্লু-ব্রিগেডকে খেলতে হবে সৌদি আরব, তুর্কমেনিস্তান, ইয়েমেনের বিরুদ্ধে৷

প্রস্তুতি হিসেবে মুম্বই বা গোয়াতে প্রস্তুতি ভারতীয় দলের শিবির বসতে চলেছে৷ এরপর কাতারের বিমান ধরবে মাতোসের দল৷ সেখানে কাতারের অনূর্ধ্ব-১৯ দলের সঙ্গে একটি আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলবে ভারত৷ তারপরই সৌদি আরবে এএফসি যোগ্যতা পর্বে ম্যাচ খেলতে যাবে মেন ইন ব্লু’র জুনিয়ররা৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।