নয়াদিল্লি: যাতে আরও সহজে রেলের ই-টিকিট বুকিং করা যায় তার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। শুক্রবার রেলমন্ত্রী পীযূষ গোয়েল এমনটাই জানিয়েছেন। এজন্য ইন্ডিয়ান রেলওয়ে ক্যাটারিং অ্যান্ড ট্যুরিজম কর্পোরেশন (আইআরসিটিসি) এর ই-টিকিট করার ওয়েবসাইটটি আরও উন্নত করা হচ্ছে এবং নতুন আরও কিছু বৈশিষ্ট্য তাতে যোগ হচ্ছে।

রেল সূত্রে খবর, দীর্ঘদিন ধরে রেলের অনলাইন বুকিং নিয়ে নানা অভিযোগ শুনতে হয় কর্তৃপক্ষকে।‌‌ বুকিং করতে গিয়ে পেমেন্ট করার সময় লিংক চলে যাওয়া, অথবা ইন্টারনেট গত সমস্যার জন্য পেমেন্ট নিয়ে নিল অথচ টিকিট বুকিং কনফার্ম হলো না-এমন সব অভিযোগ রয়েছে। বিশেষত যারা অনলাইন বুকিং এ তেমন অভ্যস্ত নয় তারা ‌ বিশেষত সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছে। এই ধরনের অভিযোগ আসায় এবার নড়েচড়ে বসেছে খোদ রেলমন্ত্রী।

রেলমন্ত্রী সূত্রের খবর, করো না পরিস্থিতির আগে এদেশে রেলের অনলাইন টিকিট বুকিং হত ৭৩ শতাংশ। করো না পরিস্থিতির জন্য লোকজনের বাইরে বের হওয়া কমে গিয়েছে ফলে অনলাইন বুকিং বাড়বে সেটাই স্বাভাবিক। ফলে দেখা গিয়েছে এখন অনলাইন টিকিট বুকিং এর হার ৮৫ শতাংশ। যেহেতু অনলাইন বুকিং এর উপর নির্ভরতা বাড়ছে সেহেতু সংশ্লিষ্ট আইআরসিটিসি ওয়েবসাইটটি আরও যাত্রী বান্ধব করার উদ্যোগ নিয়েছেন রেলের শীর্ষ কর্তারা। এই বিষয়ে আলোচনা করতেই রেল কর্তাদের সঙ্গে রেলমন্ত্রী পীযূষ গোয়েল বৈঠক করেন।

যাত্রী সুবিধার্থে আইআরসিটিসি ই- বুকিং ওয়েবসাইটে কিছু নতুন বৈশিষ্ট্য আনা হচ্ছে। যেমন দিশা চ্যাটবট যার মাধ্যমে যাত্রীরা রেল সংক্রান্ত নানা প্রশ্নের উত্তর পাবেন। তাছাড়া “বুক নাউ পে লেটার” মাধ্যমে নতুন পোস্ট পেড নতুন অপশন আনা হচ্ছে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.