নয়াদিল্লিঃ রাজ্যের জন্য সুখবর। পুজোর মধ্যেই একাধিক নতুন লোকাল ও দূরপাল্লার ট্রেন পাচ্ছে হাওড়া। তবে ভারতীয় রেল নয়, এই নতুন রুটে ট্রেন চালাবে আইআরসিটিসি। রেলমন্ত্রকের উদ্যোগে আইআরসিটিসির এই নয়া প্রকল্প চালু হতে চলেছে। সূত্রের খবর ১০০ দিনের অ্যাকশন প্ল্যান নিয়েছে ভারতীয় রেল। যাতে ব্যক্তিগত উদ্যোগে ট্রেন চালানো হবে বলে খবর। সেই উদ্যোগেই সামিল আইআরসিটিসি। আন্তর্জাতিক মানের এই ট্রেনগুলি গোটা দেশের মোট ২৪টি রুটে চলবে।

রেলমন্ত্রক থেকে প্রকাশিত এক বিবৃতিতে জানানো হয়েছে এই রুটে নতুন যে ট্রেনগুলি চলবে তার পরিষেবা হবে আন্তর্জাতিক মানের। দেশের গুরুত্বপূর্ণ শহরগুলিকে যোগ করে ছুটবে ট্রেনগুলি। ২৭সে সেপ্টেম্বর এই বিষয়ে চূড়ান্ত আলোচনা হবে বলে খবর। ট্রেনগুলির মধ্যে যেমন থাকবে লোকাল ট্রেন, তেমনই রাখা হয়েছে ইন্টারসিটি ও দূরপাল্লার বেশ কিছু রুট। দূরপাল্লার রুটগুলি হল, দিল্লি-মুম্বই, দিল্লি-লখনউ, দিল্লি-জম্মু বা কাটরা, দিল্লি-হাওড়া, সেকেন্দ্রাবাদ-হায়দরাবাদ, সেকেন্দ্রাবাদ-দিল্লি, দিল্লি-চেন্নাই, মুম্বই-চেন্নাই, হাওড়া-চেন্নাই ও হাওড়া-মুম্বই।

ইন্টারসিটি ট্রেনগুলি চলবে মুম্বই-আহমেদাবাদ, মুম্বই-পুনে, মুম্বই-মাডগাঁও, মুম্বই-ঔরঙ্গাবাদ, দিল্লি-চণ্ডীগড় বা অমৃতসর, দিল্লি-জয়পুর বা আজমেড়,হাওড়া-পুরী, হাওড়া-টাটানগর, হাওড়া-পাটনা, সেকেন্দ্রাবাদ-বিজয়ওয়াড়া, চেন্নাই-বেঙ্গালুরু, চেন্নাই-কোয়েম্বাটোর, চেন্নাই-মাদুরাই ও এর্নাকুলাম-ত্রিবান্দ্রাম।

এছাড়াও মেট্রো শহরগুলি ঘিরে বেশ কিছু লোকাল ট্রেনও চলবে বলে জানানো হয়েছে রেলমন্ত্রকের তরফে। মুম্বই, কলকাতা, চেন্নাই ও সেকেন্দ্রাবাদ হয়ে এই লোকাল ট্রেনগুলি ব্যক্তিগত উদ্যোগে চলবে।

এই উদ্যোগের প্রথম ট্রেন তেজস এক্সপ্রেস। আইআরসিটিসি পরিচালিত এই ট্রেনে চৌঠা অক্টোবর থেকে নতুন পরিষেবা চালু হতে চলেছে৷ জি নিউজে প্রকাশিত প্রতিবেদন অনুযায়ী তেজস এক্সপ্রেস সেজে উঠছে নতুন সাজে৷ নবরাত্রি থেকে যাত্রীদের কাছে নতুন পরিষেবা নিয়ে হাজির হবে ট্রেনটি৷ দিল্লি লখনউ তেজস এক্সপ্রেসকে সাজিয়ে তোলা হয়েছে অত্যাধুনিক মানে৷ যেখানে যাত্রীরা বিমান পরিষেবার মত সুযোগ সুবিধা পাবেন৷ রেল সূত্রে খবর মঙ্গলবার বাদ দিয়ে সপ্তাহের বাকি ছয় দিনই ছুটবে দিল্লি লখনউ তেজস এক্সপ্রেস৷ তবে আহমেদাবাদ মুম্বই তেজস কবে নিজের গতি পাবে, সে বিষয়ে এখনও কোনও সিদ্ধান্ত হয়নি৷

আইআরসিটিসি জানাচ্ছে, প্রাথমিকভাবে তাদের হাতে থাকলেও, পরবর্তী কালে তেজসের দায়িত্ব তুলে দেওয়া হতে পারে কোনও সংস্থার হাতে৷ এতে যাত্রীরা সংশ্লিষ্ট ট্রেনের যাত্রার ১৫ দিন আগেও টিকিট কাটতে পারবেন৷ তাতে অবশ্য দামের হেরফের হবে, বিমান পরিষেবার মতই ব্যবস্থা মিলবে৷ প্রাথমিকভাবে এক্সিকিউটিভ ক্লাসের যাত্রীরা লাউঞ্জ পরিষেবা পাবেন, তবে তা মিলবে খুবই কম খরচে৷ প্রিমিয়াম যাবতীয় সুযোগ সুবিধা নিয়ে তৈরি হবে রেলওয়ে লাউঞ্জ৷