নয়াদিল্লি: এবার গতি বাড়িয়ে ঘণ্টায় ১৮০ কিমি স্পিডে ছুটবে ভারতীয় রেল৷ তৈরি হচ্ছে হাই স্পিড ইঞ্জিন৷ মেক ইন ইণ্ডিয়া প্রকল্পের সফল রূপায়ন ঘটিয়ে তুলছে বাংলা৷ পশ্চিমবঙ্গের চিত্তরঞ্জন লোকোমোটিভ ওয়ার্কসে তৈরি হচ্ছে এই দ্রুত গতির ইঞ্জিন৷

ট্যুইট করে একথা জানান কেন্দ্রীয় রেলমন্ত্রী পীযূষ গোয়েল৷ তিনি জানান, মেক ইন ইণ্ডিয়া প্রকল্পে ভারতীয় রেল হাই স্পিডের ইঞ্জিন তৈরির সিদ্ধান্ত নিয়েছে৷ যে ইঞ্জিন ছুটবে প্রতি ঘণ্টায় ১৮০ কিমি বেগে৷ এর আগে, এই ধরণের উদ্যোগ ভারতীয় রেলে নেওয়া হয়নি৷

এরই সঙ্গে ট্যুইটারে একটি ভিডিও পোস্ট করেছেন তিনি৷ দেখা যাচ্ছে ট্রেনটির গতি ছুয়েছে ১৭৯.৮ কিমি প্রতি ঘণ্টায়৷ এর আগে, পয়লা ফেব্রুয়ারি নিজের ট্রায়াল রানে ১৮০ কিমির গতি ছুঁয়েছিল ভারতের সর্বোচ্চ গতির বন্দে ভারত এক্সপ্রেস৷

আরও পড়ুন : ভাগাভাগি নয়, স্থায়ী সমাধান হোক দার্জিলিঙে: দিলীপ ঘোষ

বলা হয়েছিল দিল্লি থেকে বারাণসী যাবে এই বন্দে ভারত এক্সপ্রেস । মেক ইন ইন্ডিয়া কর্মসূচির আওতায় বিশ্বমানের ট্রেন নির্মাণ সম্ভব, এটা তারই নিদর্শন বলে জানিয়ে ছিলেন রেলমন্ত্রী। একই সঙ্গে তিনি আরও জানান যে, পুরোপুরি শীতাতপনিয়ন্ত্রিত এই ট্রেন যাত্রাপথে কানপুর, এলাহাবাদ থামবে। এতে থাকবে দুটি এক্সিকিউটিভ চেয়ার কার। যাত্রীদের আরামদায়ক ভ্রমণের জন্য উন্নত মানের প্রযুক্তি এই ট্রেনে রয়েছে বলে জানিয়ে ছিলেন রেলমন্ত্রী।

উল্লেখ্য, ১৬ কামরার এই ট্রেন তৈরি করতে সময় লেগে ছিল ১৮ মাস। খরচ হয় ৯৭ কোটি টাকা। এটি তৈরি হয় চেন্নাইয়ের ইন্টিগ্রাল কোচ ফ্যাক্টরিতে। দেশের প্রথম লোকোমেটিভহীন ট্রেন এটি। পুরোপুরি দেশীয় প্রযুক্তিতে নির্মিত হয়েছে এই ট্রেন। রেলমন্ত্রী জানিয়ে ছিলেন, সামগ্রিক নির্মাণ খরচ কমানোর জন্যে ইতিমধ্যে রেল বোর্ডকে উত্পাদনে গতি আনতে অনুরোধ করা হয়। এও জানানো হয়, দেশে এর নির্মাণ উদ্বৃত্ত হলে বিদেশে রফতানি করা হবে গর্বের এই ট্রেন।

আরও পড়ুন : পাশে নেই মুসলিম দেশ গুলি, স্বীকার করল পাকিস্তান

নির্মাণের পর সমস্ত সেফটি ক্লিয়ারেন্স, ট্রায়াল টেস্টেই সবুজ সংকেত লাভ করেছিল বন্দে ভারত এক্সপ্রেস। ৩ টি ট্রায়াল টেস্টের যাত্রায় সব মিলিয়ে ৭০০০ কিলোমিটার পথ অতিক্রম করে দ্রুত গতির ট্রেনটি।

বন্দে ভারতের গতি অনুসরণ করেই এই ধরণের ট্রেন বানানোর পরিকল্পনা রয়েছে রেলমন্ত্রকের৷ এক্সপ্রেসগুলি ছাড়াও গতি বাড়ানো হচ্ছে পণ্যবাহী ট্রেনের৷ জানানো হয়েছে ২০১৬-১৭ সালের রেলমন্ত্রকের বাজেটে মিশন রফতারের আওতায় এই প্রকল্প নেওয়া হয়েছে৷ ধীরে ধীরে লোকাল ট্রেনগুলির গতিও বাড়ানোর পরিকল্পনা রয়েছে ভারতীয় রেলমন্ত্রকের৷